খুলনায় নদী দখল করে ইটভাটা

প্রকাশিত: ০২-১২-২০২২ ০৮:৩৮

আপডেট: ০২-১২-২০২২ ০৯:০০

খুলনা সংবাদদাতা: খুলনায় অবৈধভাবে চলছে প্রায় অর্ধশত ইট ভাটা। সারাদেশে অবৈধ ইট ভাটা বন্ধে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা থাকলেও মানছে না কেউ। এছাড়া প্রতি বছর ভাটা মালিকেরা নদী দখল করে তাদের কার্যক্রম বি¯তৃত করছে। ইট পোড়ানোর ফলে বায়ু দূষণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে স্থানীয়রা। 

পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নেই,  তবুও খুলনায় চলছে অবৈধ ইট ভাটা। জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের তথ্যমতে, খুলনায় ১৪৬টি ইটভাটা আছে। যার মধ্যে ৪৬টি অবৈধ। অভিযোগ আছে, এসব ভাটার মালিকরা প্রতিবছর নদী দখল করে তাদের ইটভাটার পরিধি বাড়াচ্ছে। হরি নদী, ভদ্রা নদী, শোলমারি, পশুর নদীসহ কমপক্ষে ১০ থেকে ১২টা নদীর পাড় ঘিরে ইট ভাটাগুলো গড়ে উঠেছে। এতে সংকুচিত হচ্ছে নদী। পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বর্ষাকালে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। 

উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী অবৈধ ইটভাটা বন্ধের জন্য পরিবেশ অধিদপ্তরের সাথে সমন্বয় করে প্রশাসন কাজ করছে বলে জানালেন পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম।

অবৈধ ইটভাটা মালিকদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান খুলনা বিভাগের পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক ইকবাল হোসেন। খুলনা বিভাগে মোট ইটভাটা রয়েছে ১ হাজার ২৩টি। এর মধ্যে পরিবেশ ছাড়পত্র রয়েছে মাত্র ৩১৮টির। 

afroza/sharif