নিষেধাজ্ঞা না মানলে জেল-জরিমানা

প্রকাশিত: ০৬-১০-২০২২ ১২:৪৬

আপডেট: ০৬-১০-২০২২ ১২:৪৬

নিজস্ব প্রতিবেদক: মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের জন্য আজ মধ্যরাত থেকে ২৮শে অক্টোবর পর্যন্ত মোট ২২ দিন সারাদেশে ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহণ, বাজারজাতকরণ, বেচাকেনা মজুদ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞা কেউ না মানলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণি সম্পদমন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম।

এই সময়ের মধ্যে ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহণ, বাজারজাতকরণ, কেনাবেচা মজুদ করলে ১ বছর থেকে ২ বছর সশ্রম কারাদণ্ড এবং পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে বলে জানান তিনি। বৃহস্পতিবার (০৬ই অক্টোবর) সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী এসব জানান।

ইলিশের দাম বৃদ্ধি অযোক্তিক নয়। কারণ জেলেরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাছ ধরে উল্লেখ করে শ. ম. রেজাউল করিম বলেন, ‘সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ইলিশ মাছের যে দাম, তা অস্বাভাবিক না।

এসময় তিনি বলেন, 'দেশে এখনো সব মানুষের কাছে চাহিদা অনুযায়ী ইলিশ পৌঁছায়নি। তাই আগামীতে আর নতুন করে কোনো দেশে ইলিশ রফতানি হবে না। এ বছর শুধু বাণিজ্যিকভাবে রফতানি হয়েছে ভারতে। চলতি বছর ১ হাজার ৩৫২ মেট্রিক টন ইলিশ বিদেশে রফতানি করা হয়েছে। এতে বাংলাদেশ ১৬১ কোটি ৬৪ লাখ টাকার বৈদেশিক মুদ্রা পেয়েছে'।

মন্ত্রী বলেন, গত ১২ বছরে দেশে ইলিশ আহরণ বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। ২০০৮-০৯ সালে ছিল ২ দশমিক ৯৮ মেট্রিক টন। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৫ দশমিক ৬৫ লাখ মেট্রিক টন ইলিশ আহরিত হয়েছে।

ইলিশ ধরা বন্ধের এই কয়েকদিনে জেলেদের জন্য ভিজিএফের পরিমাণ ২০ কেজি থেকে বাড়িয়ে ২৫ কেজি করা হয়েছে। এর আওতায় ৫ লাখ ৫৫ হাজার জেলে পরিবারকে ১৩ হাজার ৮৭২ মেট্রিক টন খাদ্য সহায়তা দেয়া হবে বলেও জানান মৎস্য ও প্রাণী সম্পদমন্ত্রী।

MNU/sharif