নারায়ণগঞ্জে ঝুঁকিপূর্ণ স্কুল ভবনে পাঠদান

প্রকাশিত: ০৪-১০-২০২২ ০৮:৩০

আপডেট: ০৪-১০-২০২২ ০৯:১০

নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা: নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকায় একটি ঝুঁকিপূর্ণ দোতলা ভবনে চলছে দুইটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কার্যক্রম। দুই শিফটে পরিচালনা করা দুটি বিদ্যালয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই পড়াশুনা করছে প্রায় সাতশতাধিক শিশু। স্কুল ভবনের দেওয়ালে দেখা ফাটল। কোথাও খসে পড়েছে সিমেন্টের প্রলেপ। সংকট রয়েছে পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষেরও। এরইমধ্যে বিদ্যালয়ের দুই পাশের জমি দখল হয়ে যাওয়ায় জায়গার অভাবে বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের জন্য আসা বরাদ্দ দুইবার ফেরত গেছে।

নারায়ণগঞ্জ শহরে ২৬ নং লক্ষীনারায়ণ বালক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ২৭ নং লক্ষীনারায়ণ বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চলছে ঝুঁকিপূর্ণ একটি ভবনে। সকাল সাতটা থেকে দুপুর বারটা পর্যন্ত ছাত্রীদের আর দুপুর বারটা থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত ছাত্রদের পাঠদান করা হয়। 

১৯৯২ সালে নির্মিত জরাজীর্ণ ভবনটির ৭টি কক্ষের মধ্যে দুইটি পরিত্যাক্ত। বাকিগুলোর বেহাল অবস্থা। বীম, ছাদ ও দেয়ালের বিভিন্ন অংশে ফাটল ধরেছে। খসে পড়ছে দেয়ালের পলেস্তারা। বৃষ্টি হলেই ছাদের দেয়াল চুয়ে পানি পড়ে। পর্যাপ্ত কক্ষের অভাবে গাদাগাদি করে এর মধ্যেই পড়াশুনা করতে হয় শিশু শিক্ষার্থীদের। 

অভিভাবকরা বলছেন, বিদ্যালয় ভবনটিতে যে কোন সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। অবিলম্বে অবৈধ দখলে থাকা বিদ্যালয়ের জমি উদ্ধার করে নতুন ভবন নির্মাণ করে শিক্ষার পরিবেশ নিরাপদ করার দাবী জানান তারা। 

প্রধান শিক্ষক নুরুন নাহার জানালেন, জমি বেদখলের কারনে বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ করা সম্ভব হচ্ছেনা। তবে বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাহবুবুল আলম চঞ্চল জানালেন, মামলা সংক্রান্ত জটিলতা কাটিয়ে উঠতে পারলে ভবন পুন:নির্মাণ করা সম্ভব হবে।

অবৈধ ভাবে জমি দখলকারীদের দায়ের করা মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে জানালেন সদ্য যোগদানকারী জেলা শিক্ষা অফিসার আলেয়া ফেরদৌসি শিখা। কোমলমতি শিশুদের স্বার্থে বিদ্যালয়ের জমি অবৈধ দখল মুক্ত ও নতুন ভবন নির্মাণ করে শিক্ষার নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবি নগরবাসীর।

lamia/sharif