ঘুমন্ত শিশুকে পুকুরে ফেলে হত্যা

প্রকাশিত: ২৭-০৯-২০২২ ১৫:৩০

আপডেট: ২৭-০৯-২০২২ ১৫:৩০

বগুড়া সংবাদদাতা: বগুড়ায় পারিবারিক কলহের জেরে জাকির হোসেন নামের এক পাষণ্ড বাবা চৌদ্দ মাস বয়সী ফুটফুটে ঘুমন্ত শিশুটিকে পুকুরে ফেলে হত্যা করেছে। মধ্যযুগীয় এই অমানবিক ঘটনাটি ঘটেছে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের উঁচুলবাড়িয়া গ্রামে। গতকাল সোমবার (২৬শে সেপ্টেম্বর)  দিবাগত রাতে কোনো নিজ সন্তানকে পুকুরের পানিতে ছুড়ে ফেলে জাকির হোসেন।

আজ মঙ্গলবার (২৭শে সেপ্টেম্বর) ভোররাতে তার দেওয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ওই পুকুর থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করেন স্থানীয় এলাকাবাসী। পরে পুলিশে খবর দিলে জাকির হোসেনকে (৪৫) আটক করা হয়। তিনি উঁচুলবাড়িয়া গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে। 

স্থানীয়রা জানান,  গত সাত বছর আগে জাকিরের সঙ্গে পাশ^বর্তী নন্দীগ্রাম উপজেলার বুড়ইল ইউনিয়নের নামা সিংড়াপাড়া গ্রামের রমজান আলীর মেয়ে রাবেয়া খাতুনের বিয়ে হয়। এক বছরের মাথায় একটি মেয়ে সন্তানের জন্ম হয়। এরপর জাকিরের প্রত্যাশা ছিল ছেলে সন্তানের। কিন্তু দ্বিতীয় সন্তানও মেয়ে হওয়ায় ক্ষুব্ধ হন তিনি।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে সবাই ঘুমিয়ে পড়লে পরবর্তীতে জাকির রাতের কোনো এক সময় ঘুমন্ত শিশুটিকে পুুকুরে ফেলে দেয়।

নিহত শিশুটির মা রাবেয়া খাতুন বলেন, মধ্যরাতে ঘুম ভেঙ্গে মেয়েকে বিছানায় না দেখে পরিবারের সবাইকে বিষয়টি জানানো হয়। এরপর খোঁজাখুজির একপর্যায়ে মেয়েকে না পেয়ে স্বামী জাকিরকে জিঞ্জাসাবাদ করা হলে সে শিশুকে পুকুরে ফেলে দেওয়ার কথা স্বীকার করে। 

শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান খন্দকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, শিশুটির লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বগুড়ায় শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। সেইসাথে ঘাতক বাবা জাকিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

lamia/sharif