জাতীয় পরিচয়পত্রে ডিএনএ তথ্য সংযুক্ত করার পরামর্শ

প্রকাশিত: ২২-০৯-২০২২ ২১:৩৩

আপডেট: ২২-০৯-২০২২ ২১:৩৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতীয় পরিচয়পত্রে স্থায়ী ঠিকানা দৃশ্যমান করা, ডাটাবেজে বাবা মায়ের নাম ইংরেজিতে লিপিবন্ধ, ডিএনএ তথ্য সন্নিবেশ ও স্মার্ট কার্ডে চিপের ব্যবহার করার পরামর্শ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও সেবা গ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর। জাতীয় পরিচিতি যাচাই সেবা, সেবার প্রকৃতি, সমস্যা ও উত্তরণের উপায় শীর্ষক সেমিনারে এসব পরামর্শ উঠে এসেছে। 

বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন কমিশনের আইডিইএ প্রকল্প-২ আয়োজনে নির্বাচনি প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউটে এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও সার্ভারের গতি বাড়ানো, ই-কেওয়াইসি সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের সাথে সর্বনিম্ন ৩ বছরের চুক্তি ও প্রতি তিন বছর পরপর চুক্তির মেয়াদ নবায়ন প্রভাব বিবেচনায় বেশ কিছু সুপারিশ করেছেন সেমিনারে অংশগ্রহণকারীরা।

আইডিইএ প্রকল্প ২য় পর্যায়ের ডিপিডি (কমিউনিকেশন) স্কোয়ড্রন লিডার মো. শাহরিয়ার আলম স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নির্বাচন কমিশনার মো. আহসান হাবিব খান বলেন, সরকারি বেসরকারী ১৬৪ টি প্রতিষ্ঠান বর্তমানে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের কাছ থেকে ই-কেওয়াইসি সেবা গ্রহণ করছে। আর এই সেবা থেকে অর্জিত অর্থ রাজস্ব খাতে জমা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। 

সেমিনারে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা, নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর ও নির্বাচন কমিশনার মো. আনিছুর রহমান। 

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ। সেমিনারের লক্ষ উদ্দেশ্য ও আউটপুট বিষয়ে বর্ণনা করেন জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক এ কে এম হুমায়ুন কবীর। পাশাপাশি জাতীয় পরিচিতি সেবা যাচাই, সেবার প্রকৃতি, সমস্যা ও উত্তরণের উপায় শীর্ষক কিনোট উপস্থাপন করেন আইডিইএ প্রকল্প ২য় পর্যায়ের প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল কাশেম মো. ফজলুল কাদের।

জাতীয় পরিচিতি যাচাই সেবার চ্যালেঞ্জ ও বাস্তবায়নের প্রেক্ষাপট সম্পর্কে আলোচনা করেন নির্বাচনি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মো. আব্দুল বাতেন।

এছাড়াও ই-কেওয়াইসি সেবা গ্রহণকারী প্রতিষ্ঠান যাতে এনআইডি সেবা প্রদানে ৩য় পক্ষের সাথে চুক্তিবদ্ধ না হতে পারে সেবিষয়ে সতর্ক থাকতে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে পরামর্শ দেয়া হয়।

নির্বাচন কমিশন ও পার্টনারদের বিলিং সিস্টেম ম্যানুয়ালের পরিবর্তে অটোমেটেড করার পরামর্শ দেন বক্তারা। পার্টনারদের ফোকাল পার্সন পরিবর্তন হলে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগকে দ্রুত অবহিত করার পরামর্শ দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নির্বাচন কমিশন সচিব জনাব মোঃ হুমায়ূন কবীর খোন্দকার।

 

KFA/shimul