নিম্নচাপটি লঘুচাপে পরিণত হয়েছে

প্রকাশিত: ১০-০৮-২০২২ ১১:৫৩

আপডেট: ১০-০৮-২০২২ ১৫:৩৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিুচাপটি দুর্বল হয়ে লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। তবে, এর প্রভাবে দেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়াসহ থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে।  সেখানকার নদ-নদীর পানি তিন ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে, তলিয়ে গেছে নিচু এলাকা। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। এদিকে, ভোলা ও পটুয়াখালীতে ট্রলার ডুবে নিখোঁজ রয়েছে পাঁচ জেলে।

ভারতের উড়িষ্যা উপকূলে সৃষ্ট নিুচাপটি দুর্বল হয়ে লঘুচাপ আকারে ছত্তিসগড় এলাকায় অবস্থান করছে। এর প্রভাবে উত্তাল রয়েছে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা। ঝড়ো হাওয়াসহ থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে এসব এলাকায়।

বুধবার সকাল থেকে উপকূলীয় জেলা বরগুনায় দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি হচ্ছে। ভ্যাপসা গরমের পর বৃষ্টি স্বস্তি ছড়ালেও আমনের বীজ তলা পানিতে তলিয়ে গেছে। জনজীবনে বেড়েছে দুর্ভোগ।  নদ-নদীর পানিও বাড়তে শুরু করেছে।

লঘুচাপের কারণে বরিশালের কীর্তনখোলা, সুগন্ধা, সন্ধ্যাসহ নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। প্লাবিত হয়েছে নিুাঞ্চল। তবে, বেলা বাড়ার সাথে সাথে বৃষ্টিপাত কমেছে।

পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল। সোমবার থেকে থেমে থেমে হচ্ছে বৃষ্টি। এসব এলাকার নদ-নদীর পানি ২ থেকে ৩ ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে।

ভোলার বিভিন্ন এলাকায় সকাল থেকেই বৃষ্টি হচ্ছে। মেঘনা ও সাগর মোহনা উত্তাল রয়েছে। নদ-নদীর পানি বেড়ে যাওয়ায় তলিয়ে গেছে অনেক এলাকা। বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবিতে নিখোঁজ রয়েছে এই এলাকার ৩ জেলে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, লঘুচাপের কারনে উপকূলীয় ১৫টি জেলা এবং আশেপাশের দ্বীপ ও চর এলাকায় স্বাভাবিকের চেয়ে দুই থেকে চার ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। দুই দিন পর পরিস্থিতির উন্নতি হবে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত বহাল রয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করা মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি চলাচল করার নির্দেশ দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

 

MNU/prabir