আর্সেনিকযুক্ত পানিই পান করতে হচ্ছে

প্রকাশিত: ০৮-০৮-২০২২ ০৯:১৩

আপডেট: ০৮-০৮-২০২২ ১০:২০

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সংবাদদাতা: চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায় আর্সেনিক আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এই উপজেলায় অন্তত ২০৭টি অগভীর ও গভীর নলকূপের পানিতে আর্সেনিক রয়েছে বলে জানিয়েছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর।  কিন্তু বিকল্প উৎস না থাকায় এই পানি খেয়ে আর্সেনিকে আক্রান্ত হচ্ছেন স্থানীয়রা। দেখা দিয়েছে বিভিন্ন ধরনের চর্মরোগ।

উত্তরের জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জে আর্সেনিকের সমস্যা অনেক পুরোনো। কয়েক দশক ধরে এখানকার নলকূপগুলোর পানিতে আর্সেনিকের সমস্যা সমাধানে নানা উদ্যোগ নিলেও তা পুরোপুরি কাজে লাগেনি।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায় ১ হাজার ৯২টি গভীর নলকূপ ও টিউবয়েল রয়েছে। এর মধ্যে ২০৭টি’র পানিতেই আর্সেনিক রয়েছে। বিশুদ্ধ পানির বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় বাধ্য হয়ে এখনো তাই আর্সেনিকযুক্ত পানি পান করছে উপজেলার রানীহাটি, চর অনুপনগরসহ ১৩টি ইউনিয়নের মানুষ। চলছে রান্নাবান্নাসহ যাবতীয় কাজ।

বছরের পর বছর আর্সেনিকযুক্ত পানি পান করায় হাতে পায়ে গুটি ও সারা শরীরে কালো দাগসহ বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন স্থানীয়রা। অনেকে আক্রান্ত হচ্ছেন জ্বর, কাশি, অ্যাজমা ও শ্বাসকষ্টে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, বিশুদ্ধ পানির বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় বাধ্য হয়েই আর্সেনিকযুক্ত পানি পান করছেন তারা। আর্সেনিক মোকাবেলায় সরকারি কিংবা বেসরকারিভাবে কোন ধরনের উদ্যোগ নেয়া হয়নি।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বললেন, সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর নজরদারি না থাকায় আক্রান্তের হার বেড়েই চলেছে বলে জানালেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ তসিকুল ইসলাম।

আর্সেনিকের হাত থেকে স্থানীয়দের রক্ষায় উদ্যোগ নেয়ার কথা জানালেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী অমিত কুমার সরকার ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) আব্দুল মতিন। এই সমস্যার সমাধান হবে বলেও আশাবাদী তারা। 

 

kanij/shamim