মহানায়ক উত্তম কুমারকে হারানোর দিন আজ

প্রকাশিত: ২৪-০৭-২০২২ ১১:৪৫

আপডেট: ২৪-০৭-২০২২ ১১:৪৫

বিনোদন ডেস্ক: মহানায়ক উত্তম কুমারের মৃত্যুবার্ষিকী আজ রোববার (২৪শে জুলাই)। ১৯৮০ সালের এই দিনে কোটি ভক্তকে কাঁদিয়ে চির বিদায় নিয়েছিলেন তিনি। উত্তম কুমারের পারিবারিক নাম অরুণকুমার চট্টোপাধ্যায়। চলচ্চিত্র ছাড়াও তিনি মঞ্চেরও একজন সফল অভিনেতা। এছাড়া তিনি প্রযোজনা এবং ছবি পরিচালনাও করেছেন।

উত্তম কুমার ১৯২৬ সালের তেসরা সেপ্টেম্বর কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন। কলকাতার একটিন স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন এবং পরে গোয়েঙ্কো কলেজে ভর্তি হন। কলকাতার পোর্টে চাকরি নিয়ে কর্মজীবন শুরু করলেও গ্র্যাজুয়েশন শেষ করতে পারেননি।

তিন সন্তানের মধ্যে উত্তম কুমার ছিলেন সবার বড়। তার ছোট ভাই তরুণ কুমার একজন শক্তিশালী অভিনেতা ছিলেন। 

উত্তম কুমারের প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ছিল দৃষ্টিদান। এর আগে উত্তম কুমার মায়াডোর নামে একটি চলচ্চিত্রে কাজ করেছিলেন, কিন্তু সেটি মুক্তিলাভ করেনি। বসু পরিবার চলচ্চিত্রে তিনি প্রথম দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এরপর সাড়ে চুয়াত্তর মুক্তি পাবার পরে তিনি চলচ্চিত্র জগতে স্থায়ী আসন লাভ করেন। এই ছবিতেই তিনি প্রথমবার অভিনেত্রী সুচিত্রা সেনের বিপরীতে অভিনয় করেন। এই ছবির মাধ্যমে বাংলা চলচ্চিত্র জগতের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সফল উত্তম-সুচিত্রা জুটির সূত্রপাত হয়।

এ জুটির সেরা চলচ্চিত্রগুলো হল- হারানো সুর, পথে হল দেরী, সপ্তপদী, চাওয়া পাওয়া, বিপাশা, জীবন তৃষ্ণা, অগ্নিপরীক্ষা এবং সাগরিকা।

১৯৮০ সাল পর্যন্ত ৩৩ বছরে বাংলা ও হিন্দি মিলিয়ে প্রায় আড়াইশ’ ছবিতে অভিনয় করেছেন উত্তম কুমার। এর মধ্যে উত্তম কুমার ও সুচিত্রা সেন জুটি হয়ে ৩১টি ছবিতে অভিনয় করেছেন। ১৯৬৭ সালে অ্যান্টনি ফিরিঙ্গি ও চিড়িয়াখানা ছবির জন্য তিনি জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলেন।

উত্তম কুমার গৌরী দেবীকে বিয়ে করেন। ১৯৬৩ সালে উত্তম কুমার তার পরিবার ছেড়ে চলে যান। দীর্ঘ ১৭ বছর তিনি তৎকালীন জনপ্রিয় অভিনেত্রী সুপ্রিয়া দেবীর সঙ্গে বসবাস করেন, তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত।

 

rocky/habib