আফগানিস্তানে বন্যায় মৃত্যু ৪ শতাধিক

প্রকাশিত: ২৩-০৬-২০২২ ১০:৫৩

আপডেট: ২৩-০৬-২০২২ ১৫:৩১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভয়াবহ ভ‍ূমিকম্প আর আকস্মিক বন্যায় বিপর্যস্ত গোটা আফগানিস্তান। টানা বৃষ্টির ফলে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে দেড় হাজার। দেশটির সরকার জানিয়েছে, ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা প্রায় ১১শ’তে ঠেকেছে। আর বন্যায় প্রাণ গেছে ৪শোরও বেশি মানুষের। বন্যায় ব্যহৃত হচ্ছে উদ্ধার তৎপরতা। ভয়াবহ এই প্রাকৃতিক দুর্যোগ কাটিয়ে উঠতে আন্তর্জাতিক সহায়তার আবেদন জানিয়েছে তালেবান সরকার। এরিমধ্যে জাতিসংঘসহ কয়েকটি দেশ সহায়তার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে।

আফগানিস্তানের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় পাকতিকা প্রদেশে এখন যেদিকেই চোখ যায়, কেবলই ধ্বংসযজ্ঞের চিহ্ন। মঙ্গলবার মধ্যরাতে রিখটার স্কেলে ৬ দশমিক ১ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থলের আশপাশের গ্রামগুলো পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে। রাস্তা ও মোবাইল ফোনের টাওয়ারগুলো ভেঙে পড়েছে। ধ্বংসস্তূপের নিচে এখনো চাপা পড়ে আছে সবকিছু। এরই মাঝে টানা বৃষ্টিতে ভেসে গেছে ঘরবাড়ীসহ মাটির তৈরি নানা স্থাপনা। 

প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির অভাব ও ভারী বৃষ্টির কারণে উদ্ধার কাজ সামাল দিতেই হিমশিম খাচ্ছে দেশটি সরকার। দেশটির প্রাকৃতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে ৩৪টি প্রদেশের ১৮টিতেই দেখা দিয়েছে বন্যা। এতে অন্তত চারশ’ জনের প্রাণহানি হয়েছে। কোথাও কোথাও এখনো বৃষ্টি হচ্ছে। পনির নিচে তলিয়ে গেছে হাজার হাজার একর ফসলি জমি। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বন্যায় যারা ঘর হারিয়েছেন তাদের সরিয়ে নিয়ে বসবাসের জন্য তাবুর ব্যবস্থা করা হয়েছে। 

দেশটিতে ভয়াবহ এই দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে আন্তর্জাতিক সহায়তার আবেদন জানিয়েছে শাসকগোষ্ঠী তালেবান। এমন বিপর্যয়ে জরুরি সহায়তা পাঠানোর প্রস্তুতির কথা জানিয়েছে চীন। এছাড়া পর্যাপ্ত সহযোগিতা করেছে জাতিসংঘ। 

এদিকে, বৃষ্টি কমে যাওয়ায় ভারতের আসামের সামগ্রিক বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে বরাক উপত্যকার পরিস্থিতি এখনও খারাপ। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে সেখানের বেশকিছু এলাকা। বন্যায় আরো ১২ জনের প্রাণহানি হয়েছে। এনিয়ে রাজ্যটিতে মৃতের সংখ্যা একশ’ ছাড়িয়েছে বলে জানিয়েছে প্রাদেশিক কর্তৃপক্ষ। 

SAI/sharif