গাইবান্ধায় সাবেক ইউপি সদস্যকে পিটিয়ে হত্যা

প্রকাশিত: ০১-০৬-২০২২ ১৫:৩৭

আপডেট: ০১-০৬-২০২২ ১৫:৩৭

গাইবান্ধা সংবাদদাতা: পুত্রবধূর বাড়িতে গিয়ে গাইবান্ধার সাঘাটার কচুয়া ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য মোজাফফর আকন্দকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার (৩১শে মে) সন্ধ্যায় গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের বামনহাজরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, নিহত মোজ্জাফরের ছেলে জাফর ইকবাল পুলিশ বাহিনীতে কর্মরত ছিল। ২০১৯ সালের ২৩শে আগষ্ট সাঘাটা উপজেলার কামালের পাড়া ইউনিয়নের গোরের পাড়া গ্রামের ছাইদুল ইসলামের মেয়ে লিমা আক্তারের সাথে বিয়ে হয় জাফর ইকবালের। পারিবারিক বিরোধের কারণে লিমা আক্তার বাদী হয়ে ৬ই জানুয়ারি ২০২০ গাইবান্ধা আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় পুলিশের চাকরি থেকে জাফর ইকবালকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

২০২০ সালের ৮ই আগষ্ট আদালতে দেনমহরের টাকা পরিশোধ করে লিমাকে তালক দেন জাফর ইকবাল। তালাকের পর জাফর ইকবাল পুলিশ পরিচয় দিয়ে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের আব্দুল ওয়াহেদের মেয়ে শাপলা আক্তারকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। বিবাহের কিছু দিন পর চাকরি থেকে অব্যাহতির বিষয়টি জানাজানি হলে শাপলার পরিবারের মাঝে ক্ষোভ বেড়ে যায়। পরে দেনমোহরের টাকার জন্য ছেলের পরিবারকে চাপ দেয়। মীমাংসার চেষ্টার কথা বলে তার বাবা মোজ্জাফরকে একা যেতে বলে।  

গতকাল মঙ্গলবাল (৩১শে মে) বিকালে মোজাফফর ছেলের বৌ শাপলার বাবার বাড়িতে যায়। এরপর শাপলার পরিবারের লোকজন প্রথম স্ত্রী লিমার পরিবারের লোকজনকে ডাকেন এবং ছেলের দুই স্ত্রী ও তার পরিবারের লোকজন ছেলের বাবাকে পরিকল্পিতভাবে মারধর করে। পরে স্থানীয়রা তাকে গুরত্বর অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে সাঘাটা উপজেলা হাসপাতালের ভর্তি করলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সাঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মতিউর রহমান হত্যার ঘটনাটি নিশ্চিত করে জানান, সাবেক ইউপি সদস্য মোজাফফরের মরদেহ গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনাটি তদন্ত চলছে।

MBK/sharif