তাপদাহে বিপর্যস্ত উত্তরাঞ্চলের জনজীবন

প্রকাশিত: ১৯-০৪-২০২২ ০৮:৫৩

আপডেট: ১৯-০৪-২০২২ ০৮:৫৩

নিজস্ব সংবাদদাতা: জলবায়ু পরির্বতনের প্রভাবে বৃষ্টির অভাবে রাজশাহীসহ গোটা উত্তরাঞ্চলবাসীর জনজীবন মারাত্মকভাবে বিপর্যয়ের কবলে পরেছে। অব্যাহত তাপপ্রবাহে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সেখানকার জনজীবন। পাশাপাশি বিপন্ন হয়ে উঠেছে প্রকৃতি। একটু বৃষ্টির জন্য চারদিকে হাহাকার পড়ে গেছে ঐ অঞ্চলজুড়ে।

রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের তথ্যমতে, চলতি মাসে এ পর্যন্ত মাত্র শূন্য দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে গত ৩ এপ্রিল । এর আগে সর্বশেষ ৪ ফেব্রুয়ারি ৩০ দশমিক ৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। মার্চে কোনও বৃষ্টি হয়নি।

কয়েকদিনের আবহাওয়ার পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, ১৫ এপ্রিল রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শনিবার (১৬ এপ্রিল) মৌসুমের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। রবিবার (১৭ এপ্রিল) সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সোমবার (১৮ এপ্রিল) দুপুর ৩টায় সর্বোচ্চ ৩৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

রাজশাহীতে ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু হয়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ। চৈত্রের খরতাপে মানুষের অসচেতন জীবনযাপন এই প্রকোপ আরও বাড়িয়েছে। প্রতিদিনিই রামেক হাসপাতালে ৪০ জনের বেশি ডায়রিয়া রোগী ভর্তি হচ্ছেন। যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্টরা।

হাসপাতালের তথ্য অনুযায়ী, গতকাল সোমবার পর্যন্ত ডায়রিয়া ইউনিটে ১৫৪ জন রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এর মধ্যে শিশু বিভাগে ৯৮ জন ও মেডিসিন বিভাগে ৫৬ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৭ জনকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। এই সময়ে ভর্তি হয়েছেন ৬২ জন। তার মধ্যে শিশু বিভাগে ১৯ জন, মেডিসিন বিভাগে ৪৩ জন।

এদিকে আমের রাজধানীখ্যাত রাজশাহীতে মাঝারি ও তীব্র তাপদাহে ঝড়ে পড়ছে আমের গুটি। এ অবস্থায় ফলন বিপর্যয়ের পাশাপাশি আমের ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন আম চাষিরা। 

 

MHS/ramen