বেচা-কেনায় প্রাণ ফিরেছে ব্যবসায়ীদের

প্রকাশিত: ১৮-০৪-২০২২ ১৪:২১

আপডেট: ১৮-০৪-২০২২ ১৫:১০

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনার স্থবিরতা কাটিয়ে প্রায় দু বছর পর, উৎসবকে কেন্দ্র করে পোশাক, ভোগ্যপণ্যসহ নানা শৌখিন পণ্য বেচা-কেনায় প্রাণ ফিরেছে। তাই কিছুটা হলেও স্বস্তিতে ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা, সঙ্গে ক্রেতারাও। নতুন নতুন চাহিদা তৈরি হচ্ছে। সব মিলিয়ে অর্থনীতিও বেশ চাঙ্গা এই সময়ে। উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা জানালেন পয়লা বৈশাখের পর ঈদকে ঘিরে বেচা-বিক্রি আরো বেড়েছে।

করোনার অতিমারিতে টানা দুই বছর উৎসব কেন্দ্রিক পোশাক বা ফ্যাশন পণ্যের বিক্রিতে যে ধ্বস নেমেছিল এ বছর অনেকটাই কেটে গেছে। করোনা অতিমারি নিয়ন্ত্রণের ফলে উৎসবের আমেজও তা টের পাওয়া যাচ্ছে।

রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট ও বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস ঘুরে দেখা গেছে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। শুধু পোশাকই নয় বিভিন্ন উপহার সামগ্রি, শো-পিস এবং প্রসাধনী বাজারও জমেছে বেশ।

মাত্র বৈশাখ শেষ হলো, সামনে আবার ঈদ, বেচা- কেনায় যে  ঢেউ লেগেছে তা সামনের দিনে আরো বাড়ার প্রত্যাশা বিক্রেতাদের।

উৎসব পালনে, গেল দুই বছরে যে শূন্যতা তৈরী হয়েছিল। তা থেকে মানুষ মুক্তির স্বাদ পেতে চায়, এমন মন্তব্য করে উদ্যোক্তা শাহীন আহমেদ জানালেন এবারে অন্যান্য স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বাজারে বেশি মানুষ আসছেন । তাই তাদের চাহিদার কথা ভেবে আগে ভাগেই যেন প্রস্তুতিও নিয়েছেন তারা।

উৎসবকে কেন্দ্র করে অর্থর্নীতি ঘুরে দাঁড়ানোর এই সময়ে প্রতিবেশী দেশের পণ্যে যেন দেশের বাজার সয়লাব না হয় তা নিশ্চিত করতে বললেন এই উদ্যেক্তারা। তার মতে, স্বাভাবিক সময়ের ফেরা ও মানুষের উৎসব প্রিয়তায় অর্থনীতির পালেও হাওয়া লেগেছে।

 

Mukta/ramen