বছর না পেরুতেই নষ্ট হওয়ার পথে সড়কবাতি

প্রকাশিত: ১৭-০৪-২০২২ ১০:০৮

আপডেট: ১৭-০৪-২০২২ ১০:৪২

নাটোর সংবাদদাতা: নাটোরের বিভিন্ন গ্রামে সড়কবাতি স্থাপন করার বছর না পেরুতেই বেশিরভাগই নষ্ট হওয়ার পথে। প্রায় ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে জেলার সাত উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে স্থাপিত এসব সড়কবাতির অধিকাংশই আর জ্বলে না। স্থানীয়দের অভিযোগ, নিুমানের সামগ্রী ব্যবহার ও যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ না করায় এমনটি হয়েছে। তবে সড়কবাতি মেরামতের জন্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানকে নিদের্শ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

নাটোরের বিভিন্ন গ্রামের রাস্তাঘাট, বাজার ও গুরুত্বপূর্ণ স্থান আলোকিত করতে ৪ হাজার ১৩৩টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়। গত তিন বছরে জেলার সাতটি উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে টিআর-কাবিখা প্রকল্পের মোট বরাদ্দের অর্ধেক দিয়ে বসানো হয় এসব সৌর শক্তি চালিত বাতি। যা সাড়া ফেলেছিল স্থানীয়দের মাঝে।

তবে এসব সড়কবাতির অধিকাংশই এখন অকেজো। মাঝে মাঝে দু-একটা বাতিতে আলো জ্বললেও বেশির ভাগই নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, নি¤œমানের সামগ্রী ব্যবহার ও প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণ না করায় বাতিগুলোর এমন বেহাল দশা। অভিযোগ দিলেও প্রতিকার মেলেনি বলে জানান তারা।

 

এসব অভিযোগের সাথে একমত স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও। নাটোরের লালপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইসাহাক আলী বলছেন, নির্ধারিত প্রতিষ্ঠান থেকে ক্রয় করার বাধ্যবাধকতা থাকায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে, জেলা ত্রাণ ও দুর্যোগ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা সালাহ উদ্দিন আল-ওয়াদুদ জানালেন, সার্ভিস চার্জ বাবদ সড়কবাতি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে তিন বছরের অর্থ জমা নেয়া আছে। বাতি মেরামত করতে নির্দেশও দেয়া হয়েছে।

সড়কবাতির তিন বছরের রক্ষণাবেক্ষণ খরচসহ মূল্য ধরা হয় ৭৭ হাজার টাকা থেকে লাখ টাকা প্রায়। আর এগুলো স্থাপনে জেলায় মোট ব্যয় হয়েছে ৩২ কোটি টাকার বেশি।

 

 

 

 

MNU/prabir