নিত্যপণ্যের দাম বাড়ায় মূল্যস্ফীতি

প্রকাশিত: ১৬-০৪-২০২২ ১৪:০৭

আপডেট: ১৬-০৪-২০২২ ১৬:৪৬

তানজিলা নিঝুম: নিত্যপণ্যের দাম বাড়ার কারণে মূল্যস্ফীতি ৬ শতাংশ ছাড়িয়েছে। যা গত দেড় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। বিশ^বাজারে পণ্যের দাম ও পরিবহন ব্যয় বেড়ে যাওয়া, সরবরাহ ব্যবস্থায় দুর্বলতা ও বানিজ্য ঘাটতির কারণে মূল্যস্ফীতি বাড়ছে বলে মনে করছেন অর্র্থনীতিবিদরা। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ রাখতে সরবরাহ ব্যবস্থায় আরো সর্তক অবলম্বনসহ সরকারকে কর ব্যবস্থায় পরির্বতন আনার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। ব্যবসায়ীদের পণ্য মজুদের প্রবণতা বন্ধ করার পরামর্শ দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

চাল, তেল, সবজি থেকে শুরু করে সব ধরনের নিত্য পণ্যের দাম লাগামহীনভাবে বেড়েই চলছে। পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যমতে, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে মূল্যস্ফীতি ছিল ৫ দশমিক আট-ছয় শতাংশ। আর ফেব্রুয়ারিতে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৬ দশমিক এক-সাত শতাংশ। যা গত ১৬ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে ২০২০ সালের অক্টোবরে মূল্যস্ফীতি ছিল ৬ দশমিক চার-চার শতাংশ। 

অর্থনীতিবিদের মতে, আমদানির খরচ বেড়ে গেছে। পাশাপাশি সরবরাহ ব্যবস্থায় সুশাসনের অভাব রয়েছে। এতে অসাধু ব্যবসায়ীরা সুযোগ নেয়ায় বিশ্ব বাজারের চেয়ে দেশের বাজারে দাম বেশি বাড়ছে বলে মনে করেন সিপিডির রিসার্চ পেলো তৌফিকুল ইসলাম খান। 

মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির বিরুপ প্রভাব কমাতে সুলভ মূল্যে পণ্য সরবরাহ বাড়ানো, ব্যক্তিশ্রেনীর করমুক্ত আয়সীমা বাড়ানোসহ বেশ কিছু পরামর্শ দেন তিনি। দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকারের নেয়া উদ্যোগ তুলে ধরেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান। পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের সর্তক করেন তিনি। নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে ব্যবসায়ীদেরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান পরিকল্পনা মন্ত্রী। 

Nijhum/ramen