বাজার নিয়ন্ত্রণে আনছে সরকার- পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রকাশিত: ২৪-০৩-২০২২ ২২:২৮

আপডেট: ২৪-০৩-২০২২ ২২:২৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিশ্বে সরকার নিয়ন্ত্রিত কোন বাজার নেই উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, বাজারকে স্বনিয়ন্ত্রিত হতে হবে। আজ বৃহস্পতিবার (২ শে মার্চ) দুপুরে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনে কনশাস কনজুমার্স সোসাইটি আয়োজিত ভোক্তা অধিকার সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। 

মন্ত্রী বলেন, ‘পণ্য কেনাকাটায় ভোক্তাদের আরও সচেতন হওয়া প্রয়োজন। জনগণের সামনে অনেক সমস্যা রয়েছে। মূল্য নিয়েও অসন্তোষ রয়েছে। তবে পণ্যের মান ও মূল্য সঠিক রয়েছে কিনা এ বিষয়ে ভোক্তাদের আরও সচেতন হতে হবে। বর্তমানে সবকিছুর দাম বাড়ানোর বিষয় পরিলক্ষিত হচ্ছে। তা মোকাবিলায় সরকার পদক্ষেপ নিচ্ছে।’

পণ্যের দাম বাড়া এবং কমা এ বিষয়টি চলমান থাকলে তা উন্নয়নের জন্য ক্ষতিকর উল্লেখ করে মন্ত্রী আরও বলেন, ‘এ সব বিষয়ে সরকার কাজ করছে। পণ্যের দাম স্থিতিশীল অবস্থায় আনতে কাজ করতে হবে। এ বিষয়ে কনসাস কনজুমার সোসাইটিকে (সিসিএস) আরও কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে।’

রমজান এলে একদিকে পণ্যের দাম বেড়ে যায়, অন্যদিকে ভোক্তারা কেনাকাটায় ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এ বিষয়ে কিছুটা ক্ষোভ জানিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘এ বিষয়ে সবাইকে সচেতন হতে হবে। অধিক কেনাকাটার বৈজ্ঞানিক কোনও কারণ খুঁজে পাওয়া যায় না। এছাড়া ব্যবসায়ীরাও অধিক মুনাফার জন্য পুরনো পণ্য বিক্রি ও মিথ্যা বলে বিক্রির চেষ্টা করে। গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন দেখা দেয়। তবে সচেতনতাই বড় বিষয়।’

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান তার বক্তব্যে বলেন, ‘জনসম্পৃক্ততা ছাড়া কোনোকিছু সম্ভব নয়।‌ প্রতিনিয়ত প্রতিটি জিনিসের দাম বেড়েই চলেছে। যেমন: রডের দাম, গুঁড়া দুধের দাম। বর্তমানে অস্থিরতা তেলের দাম নিয়ে। প্রতিটি জায়গায় ভোক্তারা প্রতারিত হচ্ছে। ২১৭ জন সদস্য দিয়ে ১৮ কোটি জনগণকে সেবা দেওয়া সম্ভব নয়।’

ভোজ্যতেলে কারচুপির বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ভোজ্যতেলের কারচুপির বিষয়ে যেসব ব্যবসায়ী জড়িত তাদের একটি তালিকা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে দেওয়া হয়েছে। ভোক্তাদের যদি প্রোডাকশন দিতে না পারি তাহলে ব্যর্থতা থেকেই যায়।’ ভোক্তা অধিদফতর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করবে বলেও জানান মহাপরিচালক।

এ সময় আরও ছিলেন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মাহবুব কবির মিলন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারসহ অনেকে। কনশাস কনজুমার্স সোসাইটি আয়োজিত এই ভোক্তা অধিকার সম্মেলনে ৪৬টি প্রতিষ্ঠান, ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ৩০০ সংগঠক অংশগ্রহণ করেন।

MBK/sharif