‘সুজনের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ’

প্রকাশিত: ২৭-০১-২০২২ ১৫:৪০

আপডেট: ১৯-০২-২০২২ ১৯:২২

নিজস্ব প্রতিবেদক: সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদারের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ করলেন বর্তমান প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা। আজ বৃহস্পতিবার (২৭শে জানুয়ারি) নির্বাচন ভবনে রিপোর্টার্স ফোরাম ফর ইলেকশন এন্ড ডেমোক্রেসি- আরএফইডি’র মতবিনিময় সভায় এই অভিযোগ করেন।

সিইসি বলেন, সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারকে কাজ করার সুযোগ দেননি বলেই তিনি সমালোচনা করেন। ১ কোটি টাকার আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ আছে বদিউল আলম মজুমদারের বিরুদ্ধে।

তিনি বলেন, “বদিউল আলম মজুমদার এই কমিশন নিয়ে অনেক কথা বলে ফেলেন। এটার একটা ইতিহাস আছে। এখানে যোগদানের পর থেকে আমার সঙ্গে দেখা করতে চান। তাকে নিয়ে অনেক ঝামেলা, অনিয়ম। এক কোটি টাকার আর্থিক অনিয়ম, কাজ না করে টাকা দেওয়া, নির্বাচন কমিশনে সভায় অনিয়ম নিয়ে সিদ্ধান্ত আছে।”

বর্তমান ইসির সময়ে কাজ না পাওয়ায় ‘ক্ষুব্ধ হয়ে’ বদিউল এখন কমিশনের সমালোচনা করছেন বলে মন্তব্য করেন নূরুল হুদা।

সিইসি বলেন, “জবাবদিহি অবস্থানের মধ্যে আছি। নির্বাচন বিশেষজ্ঞ ব্যক্তি আপনি নন। আপনি সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্যক্তি নন। কাগজ দিয়ে বই তৈরি করবেন এ জন্যে নেয়ার প্রয়োজন নেই। এ কাজ করার কী দরকার। এসব ওয়েবসাইটে আছে। এ ঝালমুড়ি ঠোঙ্গা বানানো ছাড়া কোনো কাজ নাই”।

এসময় সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এটিএম শামসুল হুদা হঠাৎ করেই ছবক শিখাচ্ছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার এটিএম শামসুল হুদা বর্তমান কমিশনের সমালোচনা করেন, অথচ তিনি আইন লঙ্ঘন করে ৯০ দিনের নির্বাচন করেছিলেন ৬৯০ দিনে। তিনি নিয়ম বহির্ভূতভাবে অনেক কাজ করেছেন দায়িত্বে থাকা অবস্থায়।

এসময় তিনি বলেন, উদ্দেশ্যেমূলক ভাবে অনেকে সমালোচনা করেন। নির্বাচন কমিশন সমালোচনার জায়গা। এখানে দায়িত্ব পালন করে কেউ সব বিষয়ে বাহবা নিয়ে যাবে তা সম্ভব নয়। দায়িত্ব পালনের সময়ে সমালোচনা আগ্রহের সাথে দেখেছি বলেও জানান প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

নুরুল হুদা বলেছেন, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন কঠিন হলেও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব এবং এটাই একমাত্র পথ। জরুরী পরিস্থিতিতে নির্বাচন সহজ হলেও এই পরিস্থিতি সবসময় থাকতে পারেনা।

রাতে ভোট হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, এটা অভিযোগের মধ্যেই আছে। কেউ আদালতে অভিযোগ করেনি এখন পর্যন্ত। 

বিএনপির নির্বাচনে না আসার কমিশনের প্রতি অনাস্থা কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, এটি তাদের রাজনৈতিক অবস্থান।

এসময় সিইসি বলেন, ইভিএমে সঠিক লোকই ভোট দিতে পারে। তারপরেও কারিগরি ত্রুটি থাকতে পারে। দক্ষ জনবল তৈরি করা হচ্ছে।
 

mina/jewel