নরসিংদীতে শিশু অপহরণ ও হত্যা, গ্রেফতার ৪

প্রকাশিত: ০৪-১২-২০২১ ২৩:৩২

আপডেট: ২৫-০১-২০২২ ০৯:৫৮

নরসিংদী সংবাদদাতা : নরসিংদীর রায়পুরায় শিশু ইয়ামিন অপহরণ ও হত্যার ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার (৪ঠা ডিসেম্বর) দুপুরে নরসিংদী পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সাহেব আলী পাঠান। তিনি জানান, শুক্রবার (৩রা ডিসেম্বর) গভীর রাতে রায়পুরার উত্তর বাখরনগর ও পিরিজকান্দি এলাকায় অভিযান চালিয়ে ঐ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলো, উত্তর বাখরনগর গ্রামের সিয়াম উদ্দিন, রাসেল মিয়া, সুজন মিয়া ও কাঞ্চন মিয়া। এসময় হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত স্কচটেপ, বালিশ, মুঠোফোন এবং সিম আলামত হিসেবে উদ্ধার করেছে পুলিশ। নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, টিভি চ্যানেলে অপরাধ বিষয়ক সিরিয়াল দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে আসামীরা ল্যাপটপ কেনার টাকা জোগাড় করতে এই হত্যাকান্ড ঘটায়। অপহরণের দুদিন আগে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত সিয়াম ও রাসেল মালয়েশিয়া প্রবাসী জামাল উদ্দিনের ছেলে শিশু ইয়ামিনকে অপহরণ করার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ২৮শে নভেম্বর ইউপি নির্বাচনের দিন উত্তর-বাখরনগর মধ্যপাড়ায় বাড়ির পাশের একটি দোকানের সামনে থেকে সিয়াম ও রাসেল খেলার ছলে শিশু ইয়ামিনকে অপহরণ করে। পরে তাকে সিয়ামের বাড়িতে নিয়ে মুখ, হাত, পা বেঁধে বস্তায় ভরে রেখে ইয়ামিনের মায়ের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। কিন্তু তা না পেয়ে অপহরণের দিন সন্ধ্যা বেলায় হাত-পা বাঁধা অবস্থায় বালিশ চাপা দিয়ে ইয়ামিনকে হত্যা করে সিয়াম এবং রাসেল। হত্যার পর ইয়ামিনের মরদেহ গোয়ালঘরের ভেতরে বস্তাবন্দী করে রাখে। ঘটনার ৪ দিন পর বস্তবন্দী মরদেহ রাতের অন্ধকারে একটি ডোবার মধ্যে ফেলে আসে হত্যাকারীরা। শুক্রবার সকালে রায়পুরার উত্তর বাখরনগর এলাকায় ঐ ডোবা থেকে ইয়ামিন এর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ইয়ামিনের মরদেহ শনাক্ত করে পরিবারের সদস্যরা। গ্রেপ্তারকৃতরা হত্যার ঘটনা স্বীকার করেছে উলে­খ করে পুলিশ জানিয়েছে, আসামিদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। হত্যার সাথে জড়িত বাকি আসামীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। এর আগে, নিখোঁজের ঘটনায় ইয়ামিনের মা অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে রায়পুরা থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন।

/admiin