মহাসড়কে সরকার ও নাগরিকের দায়িত্ব নির্ধারণ করে আইন

প্রকাশিত: ০২:০৯, ২৭ নভেম্বর ২০২১

আপডেট: ০৮:২২, ২৭ নভেম্বর ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক: মহাসড়কে সরকার ও নাগরিকদের দায়িত্ব নির্ধারণ করে আইন তৈরি হয়েছে সংসদে। শনিবার সংসদ অধিবেশনে ‘মহাসড়ক আইন’ পাস হয়। যাতে মহাসড়কের ব্যবস্থাপনা ও ব্যবহার সংক্রান্ত নির্দেশনা রয়েছে। এর আগে বিলের ওপর দেওয়া জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে পাঠান এবং সংশোধনী প্রস্তাবগুলোর নিষ্পত্তি করেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

গত ৪ সেপ্টেম্বর বিলটি সংসদে তোলার পর পরীক্ষা করে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। বিলে বলা হয়েছে, এ আইন অমান্য করলে দুই বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড, পাঁচ হাজার থেকে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত দণ্ড হবে।

১৯২৫ সালের হাইওয়ে অ্যাক্ট রহিত করে মহাসড়ক, নির্মাণ, উন্নয়ন ও রক্ষণাবেক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা এবং অবাধ, সুশৃঙ্খল ও নিরাপদ যান চলাচলের জন্য নতুন এই আইন করা হচ্ছে।

বিলে বলা হয়, আইনের অধীনে গেজেট দিয়ে সরকার জানিয়ে দেবে কোন সড়ক বা মহাসড়কে কে প্রবেশ করবে বা কে প্রবেশ করবে না। কোনটা মহাসড়কের সঙ্গে এক্সপ্রেসওয়ে হিসেবে ঘোষণা করা হবে। পরিচালনা কেমন করা হবে।

এদিকে, ব্যাংক এবং ই-কমার্স খাতে অনিয়মকারীদের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে সংসদে দাবি জানিয়েছেন বিরোধীদলের সংসদ সদস্যরা। তারা বিদেশে টাকা পাচারকারীদের তালিকা প্রকাশের দাবি জানান। এসময় অর্থমন্ত্রী জানান, অনিয়ম করে কেউ পার পাবে না। 

আজ শনিবার (২৭ শে নভেম্বর) স্পিকার শিরিন শারমিনের সভাপতিত্বে শুরু হয় সংসদ অধিবেশন। দিনের কার্যসূচীতে থাকা অন্যান্য বিষয় স্থগিত করে আইন প্রনয়ণ কার্যবলী শুরু করেন স্পিকার। শুরুতে অর্থমন্ত্রণালয়ের ব্যাংকিং বহি সাক্ষ্য বিল-২০২১ উত্থাপন হলে এর ওপর আলোচনায় অংশ নেন সংসদ সদস্যরা।

জাতীয় পার্টি এবং বিএনপির কয়েকজন সদস্য বিলের বিভিন্ন ধারায় সংশোধনীর প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। তারা বলেন, ব্যাংক বীমাসহ আর্থিক খাতে দুর্নীতি এবং অনিয়মের কারণে চরম অস্থিরতা বিরাজ করছে। 

এসময় অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল জানান, দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। ই-কমার্স এবং আর্থিক খাতে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

এদিকে, মহাসড়ক বিল-২০২১ সংসদে উত্থাপন করা হলে বিলের নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেন বিরোধী দলের সাংসদরা। তারা সড়কের নিরাপত্তা এবং শিক্ষার্থীদের জন্য গণপরিবহনে অর্ধেকভাড়া নিশ্চিত করার দাবি জানান। এসময় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী জানান, এরই মধ্যে বিআরটিসির বাসে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য অর্ধেক ভাড়া নেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে। বেসরকারি খাতের গণপরিবহনেও ভাড়া কমানোর জন্য আলোচনা চলছে। 

পরে সংসদে ব্যাংকিং বহি সাক্ষ বিল ও মহাসড়ক বিল দুটি পাশ হয়। মহাসড়কে কোন ধরনের গাড়ি চলবে, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ কে করবে এসব বিষয়ে ‘মহাসড়ক আইনে’ নির্দেশনা দেয়ার পাশাপাশি প্রতিবন্ধী, শিশু ও বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের জন্য মহাসড়ক নিরাপদে ব্যবহারের জন্য পদক্ষেপ নেওয়ার বিধান রাখা হয়েছে। উলে­খ করা হয়েছে, মহাসড়কের নির্ধারিত স্থান ছাড়া পারাপার হওয়া যাবেনা, ধীর গতিসম্পন্ন যানগুলো শুধু নির্ধারিত লেন দিয়ে চলতে পারবে। রয়েছে টোল আদায়ের নির্দেশনাও। 

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *

loading...
loading...