'পাকিস্তানের তথ্য গোপনের বিষয়টি ফাঁস হয়'

প্রকাশিত: ১০:৩২, ২২ জুলাই ২০২১

আপডেট: ১২:০১, ২২ জুলাই ২০২১

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছর ছিল ২০২০। তাঁর শততম জন্মবার্ষিকীর দিন, ১৭ই মার্চ থেকে শুরু হয়েছে মুজিববর্ষ উদযাপন, যা চলছে এই স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরও। স্বাধীন বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু একাত্মা। তিনিই একাত্তরের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তাঁর ডাকেই মানুষ স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। শেখ মুজিবুর রহমানের বিরল ঐতিহাসিক নেতৃত্বের সেই উত্তাল আন্দোলন ও সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলো নিয়ে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরজুড়ে বৈশাখী সংবাদের বিশেষ ধারাবাহিক আয়োজন- যাঁর ডাকে বাংলাদেশ। আজ ৪’শ ৮৩ তম প্রতিবেদন। 

একাত্তর সালের পঁচিশে মার্চ রাতে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান অর্থাৎ বর্তমান বাংলাদেশে দখলদার পাকিস্তান সেনাবাহিনী যে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ শুরু করেছিল তা পশ্চিম পাকিস্তানের জনগণকে জানতে দেয়নি দেশটির শাসকরা। এমনকি ২৬শে মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের যে স্বাধীন ঘোষণা করে তা গোপন রাখে পাকিস্তানী শাস। এছাড়া, দখলদার পাকিস্তানী সেনা কর্তৃক শেখ মুজিবকে গ্রেপ্তার এবং  বাংলাদেশে গণহত্যা পরিচালনার খবর সেদেশের পত্রিকায় প্রকাশিত হতে দেয়নি বাঙ্গালি নিধনযজ্ঞের কুশীলব পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের প্রশাসন। 

১৯৭১ সালের ২২শে জুলাই যুক্তরাজ্যের দ্যা সানডে টাইমস পত্রিকায় প্রকাশিত পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ সাংবাদিক অ্যানথনি ম্যাসকারেনহাসের এক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।  সেখানে পাকিস্তানের তথ্য গোপন কারার বিষয়টি ফাঁস করে দেন সাংবাদিক ম্যাসকারেনহাস। বলেন, “জুলাই মাসের আগে পর্যন্ত পূর্ব বাংলায় কী ঘটেছে সে সম্পর্কে পশ্চিম পাকিস্তানীরা কিছুই জানতে পারে নি। এই সময়ে পূর্ব বাংলায় প্রকাশিত বাংলা পত্র-পত্রিকাগুলোসহ পাকিস্তানের কোন সংবাদপত্রই পূর্ব বাংলার সামরিক বর্বরতার কোন খবর তো দূরের কথা, ঘটনার সঙ্গে সামান্য সত্যতা আছে এমন খবরও প্রকাশ করেনি। ঘটনার প্রথম দু’মাসের শেষের দিকে সংবাদপত্রে যেসব খবর প্রকাশিত হত, তা খুব সতর্কতার সঙ্গে কাটছাট করে ইস্তেহার আকারে তৈরি করে দিতেন সামরিক কর্মকর্তা ও বেসামরিক তথ্য অফিসাররা। পত্রিকাগুলো পূর্ব পাকিস্তানে শেখ মুজিবের অসহযোগ আন্দোলনের পরে দ্রুত স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসার উপর জোর দিয়েছিল।” (সূত্রঃ দ্যা রেইপ অব বাংলাদেশ, অ্যান্থনি ম্যাসকারেনহাস)

HIB/MSI

এই বিভাগের আরো খবর

'করাচীতে গণমাধ্যমে সাক্ষাতকার দেন ইয়াহিয়া'

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
'মানুষকে আকৃষ্ট করার বিরল গুণ ছিল বঙ্গবন্ধুর'

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
'দেশের মানুষকে বিশ্বাস করতেন বঙ্গবন্ধু'

বিউটি সমাদ্দার: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
'পল্টনে মাদ্রাসা সম্মেলন করে শান্তি কমিটি'

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
'বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে বিপর্যয় নেমে আসে'

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
'শরণার্থীদের সহায়তায় তহবিল গঠন হয়'

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
'দলের কর্মীদের স্নেহ করতেন বঙ্গবন্ধু'

বিউটি সমাদ্দার: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
'মানুষকে আকর্ষণ করার গুণ ছিল বঙ্গবন্ধুর'

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *