নড়াইলের সরকারি হ্যাচারিটি এখন গোচারণ ভূমি

প্রকাশিত: ০৯:২০, ১৫ মে ২০২১

আপডেট: ১০:৪৩, ১৫ মে ২০২১

নড়াইল সংবাদদাতা: প্রায় দুই যুগ ধরে বন্ধ নড়াইলের মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রের রেনু পোনা উৎপাদন। অকেজো হয়ে পড়ে আছে, কেন্দ্রের ব্যবহৃত জিনিসপত্র। প্রায় ১০ একরের স্থাপনাটি পরিণত হয়েছে গোচারণ ভূমিতে। জেলার মৎস্য কর্মকর্তারা জানালেন, নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে মৎস্য প্রজনন কেন্দ্রটি উৎপাদনে যেতে পারছে না।

আশির দশকে নড়াইল-যশোর সড়কের পাশে প্রায় ১০ একর জায়গার ওপর নির্মিত হয় ‘নড়াইল মৎস্য প্রজনন কেন্দ্র’। যা স্থানীয়ভাবে ‘ফিশারি’ নামে পরিচিত। শুরুতে ভালোভাবে চললেও, ১৯৯৬ সালের পর বন্ধ হয়ে যায় পোনা উৎপাদন। মৎস্য চাষিরা জানান, জেলায় চিংড়ি ও অন্যান্য মাছের প্রায় ১৩ হাজার ঘের আছে। প্রতি বছর এখানে প্রায় ৪ কোটি পোনার চাহিদা রয়েছে। কিন্তু নড়াইল প্রজনন কেন্দ্রটি বন্ধ থাকায় যশোর, খুলনা, সাতক্ষীরা থেকে রেনুপোনা সংগ্রহ করছেন চাষীরা। যা অনেক ব্যয়বহুল বলে তারা জানান।

প্রজনন কেন্দ্রের অধীনে থাকা পুকুরগুলোও গেছে শুকিয়ে। নেই কোন জনবল। তবে দ্রুতই প্রজনন কেন্দ্রটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়ার কথা জানালেন, এই মৎস্য কর্মকর্তা।

নড়াইলে মাছের চাহিদা রয়েছে প্রায় ১৬ হাজার মেট্রিক টন। উৎপাদন হয়, ২৩ হাজার ২৬১ মেট্রিক টন। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে, বাকি মাছ পাঠানো হয় রাজধানীসহ অন্য জেলায়।

MHS/BDB

এই বিভাগের আরো খবর

‘চাহিদা না থাকলে চাল আমদানি হবে না’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা : চালের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *