মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় ত্রিপুরায় ফিল্ড হাসপাতাল চালু

প্রকাশিত: ১২:১০, ১৩ মে ২০২১

আপডেট: ০২:৪০, ১৩ মে ২০২১

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছর ছিল ২০২০। তাঁর শততম জন্মবার্ষিকীর দিন, ১৭ই মার্চ থেকে শুরু হয়েছে মুজিববর্ষ উদযাপন, যা চলছে এই স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরও। স্বাধীন বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু একাত্মা। তিনিই একাত্তরের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তাঁর ডাকেই মানুষ স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। শেখ মুজিবুর রহমানের বিরল ঐতিহাসিক নেতৃত্বের সেই উত্তাল আন্দোলন ও সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলো নিয়ে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরজুড়ে বৈশাখী সংবাদের বিশেষ ধারাবাহিক আয়োজন- যাঁর ডাকে বাংলাদেশ।

মুক্তিযুদ্ধের শুরুর দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা করা বাংলাদেশের যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা ছিল না। ১৯৭১ সালের ১৩ই মে প্রতিবেশী বন্ধু রাষ্ট্র ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য সরাকার সোনামুড়ায় আহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসার জন্য প্রথম ফিল্ড হাসপাতাল চালু করে। 

একাত্তরের এদিন, যুদ্ধরত বাংলাদেশে পাকিস্তানী দখলদার সেনাবাহিনীর গভর্নর, জেনারেল টিক্কা খান বাঙালির মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি জেনারেল এম এ জি ওসমানীকে, ২০মে সকালে সামরিক আদালতে হাজির হবার নির্দেশ দেয়।

কলকাতার বেতার আকাশবাণীতে একাত্তরের এদিন প্রচারিত সংবাদে বলা হয়, “মুক্তিবাহিনীর সাথে কয়েক দফা সংঘর্ষের পর পাকিস্তান সেনাবাহিনী ঢাকা জেলার লৌহজং ও টংগীবাড়ী দখল করেছে। পাকবাহিনী যশোরের মহেশপুরে প্রবেশ করে বহু লোককে ট্রাকে তুলে নিয়ে ভালায়পুর ব্রীজের কাছে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে ২৫ জনকে হত্যা করে গর্তে ফেলে দেয়। পাকসেনারা খুলনার তেরখাদা আক্রমণ করে। ছাচিয়াদহ বাজারে ১৩২টি তেরখাদায়, ২০০টি সহ সম্পূর্ণ এলাকায় ৩০০০ বাড়িঘর পাকসেনারা লুট করে এবং পুড়িয়ে দেয়। এসময় প্রতিরোধ করতে গেলে প্রায় ১৫০জন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হয়। সিলেটে শান্তি কমিটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।” (সূত্রঃ আকাশবাণী কলকাতা)

পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর নৃশংস নিধনযজ্ঞের প্রতিবাদ করেন তিনজন ব্রিটিশ এমপি- জন স্টোনহাউজ, পিটার শোর এবং স্যার ডগলাসম্যান। তাঁরা বিবৃতিতে পাকিস্তানের সামরিক সরকারের বর্বরতার নিন্দা জ্ঞাপন করেন। বলেন, পাকিস্তান এখন মৃত। পাকিস্তানে রাজনৈতিক সমঝোতা আর সম্ভব নয়। 
 

HIB/MSI

এই বিভাগের আরো খবর

‘ব্যক্তি জীবনে ভিন্ন মেজাজের ছিলেন বঙ্গবন্ধু’

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
‘ভারতের বন্ধুত্ব চিরদিন মনে রাখবে বাঙ্গালী’

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
'আমরা লড়াই করেছি স্বাধীনতার জন্য'

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
‘৭ই মার্চের ভাষণের প্রভাব ছিলো জীবনে’

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
‘বিশ্বনেতাদের মাঝেও উজ্জ্বল ছিলেন বঙ্গবন্ধু’

বিউটি সমাদ্দার: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়ে পাকিস্তানি সেনারা

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *