বাংলার মানুষ দশ বছরের রিলিফের হিসাব চায়: বঙ্গবন্ধু

প্রকাশিত: ১০:১০, ২৪ নভেম্বর ২০২০

আপডেট: ১২:০১, ২৪ নভেম্বর ২০২০

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছর ২০২০। তাঁর শততম জন্মবার্ষিকীর দিন, ১৭ই মার্চ থেকে শুরু হয়েছে মুজিববর্ষ উদযাপন। স্বাধীন বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু একাত্মা। তিনিই একাত্তরের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তাঁর ডাকেই মানুষ স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার দ্বারে পৌঁছানোর আগের বছরটি কেমন কেটেছিল বঙ্গবন্ধুর। সেই উত্তাল আন্দোলনে শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক দিনগুলো নিয়ে মুজিববর্ষ জুড়ে বৈশাখী সংবাদের বিশেষ ধারাবাহিক আয়োজন- যাঁর ডাকে বাংলাদেশ এর আজ ২৪৩ তম প্রতিবেদন ।

সত্তর সালের নভেম্বরে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান তথা বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার ১২ দিন পর, ২৪শে নভেম্বর অব্দি ঝড়ে নিহতদের লাশ উদ্ধারে পদক্ষেপ নেয়নি পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার। পঁচা লাশের দুর্গন্ধযুক্ত পানি খেয়ে দুর্গত এলাকায় কলেরার প্রাদুর্ভাব বাড়তে থাকে। তারওপর ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তার জন্য ভোলায় যে লঙ্গরখানা খোলা হয়, সেটা বিনা কারনে বন্ধ করে দেয় প্রশাসন।

সত্তরের ২৪শে নভেম্বর পূর্ব বাংলার নোয়াখালীতে অবস্থান করছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ মুজিবুর রহমান। ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যান, তখন সাংবাদিকদেরকে সাক্ষাতকার দেন শেখ মুজিব। বলেন, “মানব ইতিহাসের ভয়াবহতম মহাপ্রলয়ে বিধ্বস্ত দুর্ভাগা বাংলার উপকূলে অগণিত মানব সন্তানের শবদেহের প্রতি নিষ্ঠুর অবজ্ঞা, অমর্যাদা এবং অন্ন-বস্ত্র-আশ্রয়-পানি-চিকিৎসার জন্য লক্ষ লক্ষ নর-নারী-শিশুর আর্তনাদ কেন্দ্রীয় সরকার নামক পাষাণ পাত্রে বার বার ব্যর্থ করাঘাত হানিয়া ফিরিয়া আসার পরিণতিতে শোষণ-বঞ্চনার চারণক্ষেত্রে এই প্রদেশের দুর্গত, বঞ্চিত জনচিত্তে আজ চরমমূল্যের বিনিময়ে এই বিশ্বাসই বদ্ধমূল হইয়া উঠিয়াছে যে বিষাদের দিনে, দুঃখের দিনে, মহা বিপর্যয়ের দিনে তারা বড়ই একা, নিতান্তই বায়বীয়, করুণার পাত্র।” (সূত্রঃ ২৫ নভেম্বর, ১৯৭০; দৈনিক ইত্তেফাক)

বঙ্গবন্ধু মুজিব বলেন, “বাংলার মানুষ অবাক বিস্ময় ও অফুরন্ত বেদনার সঙ্গে লক্ষ্য করিয়াছে যে, তাদের রক্তজল করা পরিশ্রমার্জিত অর্থে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীরা রাজারহালে জীবন-যাপন করিতেছেন, তাঁদের কংকালাসার অভুক্ত দেহের উপর যেই আমলাতন্ত্রের বিলাসসৌধ গড়িয়া উঠিয়াছে, তাদের পয়সায় যে কেন্দ্রীয় আমলা-মহাপ্রভুদের রাজকীয় কায়-কারবার চলিতেছে, চরমতম দুর্যোগের দিনে তারা বিপন্ন জনতার পার্শ্বে আসিয়া দাড়ান নাই। বাংলার মানুষ দশ বছরের রিলিফের হিসাব চায়।” (সূত্রঃ ২৫ নভেম্বর, ১৯৭০; দৈনিক ইত্তেফাক) 


 

এই বিভাগের আরো খবর

রাজনীতিতে কৌশলী ছিলেন বঙ্গবন্ধু: পল্টু

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
‘কোন চেষ্টাই সরকার গঠনে বাধা হবে না’

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
‘বিচক্ষণ রাজনীতিক ছিলেন বঙ্গবন্ধু’

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
'বঙ্গবন্ধু ছোটবেলা থেকেই অদম্য সাহসী ছিলেন'

বিউটি সমাদ্দার: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
ইয়াহিয়ার সাথে বৈঠক করেন বঙ্গবন্ধু

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *