সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞায় ক্ষমা চাইলেন স্বাস্থ্য ডিজি

প্রকাশিত: ০৫:১৯, ২৩ আগস্ট ২০২০

আপডেট: ০৫:১৯, ২৩ আগস্ট ২০২০

রাজশাহী সংবাদদাতা: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ৫ বছর ধরে ঢুকতে দেওয়া হয়না সাংবাদিকদের এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য অধিদপÍরের মহাপরিচালক খোরশেদ আলম জানান, এজন্য আমি যদি দায়ী হয়ে থাকি তাহলে আপনাদের কাছে আমি দুঃখিত এবং ক্ষমা চাই।

আজ (রোববার) দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিদর্শন ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা জানান তিনি।

তিনি জানান, মিডিয়াকে দুরে রেখে কোন কাজ সম্পন্ন করা যাবে না। দেশের মিডিয়া অনেক শক্তিশালী মাধ্যম। সাংবাদিকরা সরকারের স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়ন তুলে না ধরলে জনগণ জানবে না।

তিনি আরো জানান, আমরা যতই তুলে ধরিনা কেন তা জনগণ বিশ্বাস করবে না। মিডিয়ার সঙ্গে থাকার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালককে অনুরোধ করেন তিনি।

টিকা আবিস্কার হলে বাংলাদেশ যাতে সাথে সাথে পেতে পারে সে হোমওয়ার্ক করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর এবিএম খোরশেদ আলম।

টিকা আবিস্কার হলে আমরাও পাব। টিকা পেলে কাদের দেয়া হবে তা নিয়েও আমরা কাজ করছি বলে জানান স্বাস্থ্যের ডিজি।

এছাড়াও তিনি জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল করোনা রোগের চিকিৎসায় ভাল কাজ করছে। ঢাকার অনেক হাসপাতালের চেয়ে এখানকার ব্যবস্থাপনা ভাল। অন্যান্য রোগের চিকিৎসা এবং অপারেশন আগের চেয়ে একটু কমলেও বেশ ভাল হয়েছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) ফরিদ হোসেন মিয়া, রাজশাহী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. নওশাদ আলী, রাজশাহী বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. গোপেন্দ্রনাথ আচার্য, রামেক হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল জামিলুর রহমান।
 

এই বিভাগের আরো খবর

জামিনে কারামুক্ত সাংবাদিক রোজিনা

নিজস্ব প্রতিবেদক: জামিনে কাশিমপুর...

বিস্তারিত
জামিন পেলেন সাংবাদিক রোজিনা

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিদেশ না যাওয়ার...

বিস্তারিত
চিরবিদায় প্রণব দাশ গুপ্ত টিটু

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনায় আক্রান্ত...

বিস্তারিত
রোজিনার জামিনের বিষয়ে আদেশ রোববার

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *