কাশির সিরাপে শিশুর মৃত্যু, পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান

প্রকাশিত: ২৫-০১-২০২৩ ১০:৩২

আপডেট: ২৫-০১-২০২৩ ১০:৩২

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কাশির সিরাপ খেয়ে শিশু মৃত্যুর ঘটনায় বিষাক্ত ওষুধ থেকে শিশুদের রক্ষার জন্য ‘দ্রুত ও সমন্বিত পদক্ষেপ’ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। গতকাল (মঙ্গলবার) এক প্রতিবেদনে এমনটাই জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

২০২২ সালে গাম্বিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও উজবেকিস্তানে তিন শতাধিক শিশু বিষাক্ত কফ সিরাপ পানের পর কিডনি জটিলতায় ভোগে। এই শিশুদের অধিকাংশের বয়সই পাঁচ বছরের কম। এই সিরাপগুলোতে উচ্চ মাত্রার ডাইথাইলিন গ্লাইকোল ও ইথিলিন গ্লাইকোল থাকাতেই বিষক্রিয়া হয়।

সোমবার এক বিবৃতিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, ‘এই দূষকগুলো শিল্প দ্রাবক এবং অ্যান্টিফ্রিজ উপাদান হিসাবে ব্যবহৃত বিষাক্ত রাসায়নিক যা অল্প পরিমাণে গ্রহণ করাও মারাত্মক হতে পারে এবং ওষুধে কখনই থাকা উচিত নয়।’

সংস্থাটি জানিয়েছে, গাম্বিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও উজবেকিস্তান ছাড়াও ফিলিপাইন, তিমুর লেস্টে, সেনেগাল এবং কম্বোডিয়ায় এই ওষুধগুলো বিক্রি হতে পারে। তাই সেখানেও শিশু মৃত্যুর ঘটনা ঘটতে পারে। তাই আরও মৃত্যু রোধ করতে সদস্য ১৯৪টি দেশজুড়ে পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

ইতিমধ্যেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ওষুধ বিক্রেতাদের কাছ থেকে এই সিরাপগুলো সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছে। গাম্বিয়া ও উজবেকিস্তানে শিশু মৃত্যুর জন্য দায়ী ভারতের মেইডেন ফার্মাসিউটিক্যালস এবং ম্যারিয়ন বায়োটেক। এছাড়া ইন্দোনেশিয়ার পিটি ইয়ারিন্দো ফারতামা, পিটি ইউনিভার্সাল ফার্মাসিউটিক্যাল, পিটি কনিম্যাক্স এবং পিটি এএফআই ফার্মার প্রতি সতর্কতা জারি করা হয়েছে।  

 

Prottay/Bodiar