মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে সিলেটের পাথর কোয়ারি আপডেট: ০৫:০৬, ১৮ মার্চ ২০১৭

সিলেটের পাথর কোয়ারিগুলো পরিণত হয়েছে মৃত্যুফাঁদে। আইনের তোয়াক্কা না করেই কোয়ারি মালিকরা কেটে চলেছেন একের পর এক পাহাড়। আর ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশে পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে ধসের কারণে প্রাণ হারাচ্ছেন শ্রমিকরা। মৃত্যুর বিভীষিকায় ঢাকা পড়েছে পাহারের সৌন্দর্য।

গত আড়াই মাসে সিলেটের কোয়ারিগুলোতে পাথর উত্তোলনকালে ধসের কারণে মারা গেছেন অন্তত ২১ শ্রমিক। স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রশাসনের ছত্রছায়ায় চলে এই পাথর উত্তোলন। যদিও প্রশাসন বলছে, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনী পদক্ষেপ নিচ্ছেন তারা।

সিলেটের সৌন্দর্য্যরে অন্যতম উৎস হলো পাহাড়। তবে ক্রমেই হারাতে বসেছে এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। পাথর তোলার ক্ষেত্রে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করা আর ঝুঁকিপূর্ণ এই কাজ করতে গিয়ে শ্রমিকদের মৃত্যু হয়ে উঠেছে প্রায় নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা।

পাথর কোয়ারির মালিকরা পরিবেশের ভারসাম্য না রেখে প্রতিনিয়তই পাথর উত্তোলন করে যাচ্ছেন। অনেক কোয়ারি মালিক জোরপূর্বক স্থানীয়দের জায়গা দখল করে এই উত্তোলনের কাজ চালাচ্ছেন। আর, পাথর উত্তোলন করতে গিয়ে শ্রমিকদের কাজ করতে হচ্ছে ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশে। হারাতে হচ্ছে প্রাণ।

উচ্চ আদালত থেকে পাথর উত্তোলনের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলেও তা মানতে নারাজ কোয়ারি মালিকরা। স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রশাসনের সহযোগিতাতেই এসব প্রভাবশালী কোয়ারি মালিকরা পাথর উত্তোলনের কাজ করে যাচ্ছেন।

তবে সিলেট অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সাফায়াত মো. সাহেদুল করিম জানান, এ ব্যাপারে আইনী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে একাধিকবার। এরই মধ্যে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা অভিযান চালিয়ে ২০টি পাথর তোলার যন্ত্র জব্দ করেছে। পাশাপাশি কোয়ারির মালিকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশও দিয়েছেন তারা। এছাড়া পাথর উত্তোলনের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার কথা ভাবছেন তারা।