'মুক্তিবাহিনী ঢাকা অভিমুখে অগ্রসর হতে থাকে' 

প্রকাশিত: ১২:৫৭, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

আপডেট: ০৪:০৭, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছর ছিল ২০২০। তাঁর শততম জন্মবার্ষিকীর দিন, ১৭ই মার্চ থেকে শুরু হয়েছে মুজিববর্ষ উদযাপন, যা চলছে এই স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরও। স্বাধীন বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু একাত্মা। তিনিই একাত্তরের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তাঁর ডাকেই মানুষ স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। শেখ মুজিবুর রহমানের বিরল ঐতিহাসিক নেতৃত্বের সেই উত্তাল আন্দোলন ও সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের দিনগুলো নিয়ে মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরজুড়ে বৈশাখী সংবাদের বিশেষ ধারাবাহিক আয়োজন- যাঁর ডাকে বাংলাদেশ। আজ ৬’শ ২৩ তম প্রতিবেদন।

১৯৭১ সালের ৯ই ডিসেম্বরও মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন রণাঙ্গনে পাকিস্তানী শত্রু সেনাদের পরাজয় ঘটে এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা করা বাংলাদেশের বিভিন্ন জনপদ হানাদারদের দখলমুক্ত হতে থাকে।

দেশের গুরুত্বপূর্ণ নদী বন্দরগুলো একাত্তরের এদিন দখলদার পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণমুক্ত করে ভারতীয় মিত্রবাহিনী। পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সদস্যরা এমনভাবে কোনঠাসা ও অবরুদ্ধ হয় যে, তারা যেমন ঢাকার ভেতর থেকে বাইরে বের হতে পারেনি, তেমনি বাইরে থেকে ঢাকায় প্রবেশ করতে পারছিল না।

একাত্তরের এদিন, বাংলাদেশের মুক্তিবাহিনী ও মিত্র বাহিনী দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঢাকা অভিমুখে অগ্রসর হতে থাকে। বাংলাদেশ ভারত যৌথ কমান্ডের প্রধান জেনারেল জগজিৎ সিং অরোরা এদিন সাংবাদিকদের বলেন, “পাকিস্তানী বাহিনী দু’দিকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর অধিনায়ক জেনারেল নিয়াজী স্বীকার করেছেন তাদের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয়।” (সূত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা)

HIB/MSI

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *

loading...
loading...