মোটা চাল মেশিনে কেটে হচ্ছে চিকন !

প্রকাশিত: ০২:১৫, ২০ নভেম্বর ২০২১

আপডেট: ০৩:০১, ২০ নভেম্বর ২০২১

মেহের মণি: দেশে ১শ ৬ জাতের ধান চাষ হলেও বাজারে চাল পাওয়া যায় ৭ থেকে ৮ ধরণের। বাজারে এমন সব চাল পাওয়া যায় যা দেশের ক্ষেত-খামারে উৎপাদন হয় না। গবেষকরা বলছেন, আধুনিক অটোরাইসমিলগুলোতে বিভিন্ন জাতের ধানকে কেটে চিকন চাল তৈরি করে চালকল মালিকেরা। চালকে চকচকে ও আকর্ষনীয় করতে মেশানো হয় এরারুট। এর মাধ্যমে ভোক্তার সাথে প্রতারণা করছেন মিল মালিকেরা। 

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের কাঁচাবাজারে চালের খুচরা বিক্রেতা মনির মোল­া ৭ থেকে ৮ ধরণের চাল বিক্রি করেন। এর মধ্যে বেশি বিক্রি হয় মিনিকেট। শুধু মিনিকেটই নয় এমন বেশ কিছু চালের নাম বললেন যে নামে কোন ধান চাষ হয় না দেশে। 

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট-বারি বলছে, দেশে ১শ ৬ জাতের ধান চাষ হলেও বাজারে চাল পাওয়া যায় ৭ থেকে ৮ ধরণের। আধুনিক অটোরাইসমিলগুলোতে বিভিন্ন জাতের ধানকে একত্রে করে মাপের চিকন চাল তৈরি করে চালকল মালিকেরা। এভাবে চাল কেটে চকচকে করতে গিয়ে চালের উপরের আবরণে থাকা পুষ্টিগুণ হারিয়ে যায়। ফলে বর্তমানে মানুষ যেসব চাল খাচ্ছে তাতে পুষ্টিগুণের কিছুই থাকছে না।

মিল মালিকেরা বলছেন, ভোক্তা চিকন চাল খেতে চায় বলেই তারা মোটা চালকে কেটে চিকন চাল বানান। তবে ভোক্তারা বলছেন, এসবের কিছুই জানেন না তারা। সরকারের পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ও কৃষিবিদ শামসুল আলম বলছেন, চাল নিয়ে বাজারে চলছে রীতিমত প্রতারণা। 

এক সময় দেশের বাজারে সনাতনী পদ্ধতিতে প্রস্তুত চাল পাওয়া যেত ৬৫ ভাগ আর অটোরাইস মিলের ৩৫ ভাগ। এখন বাজারে যেসব চাল পাওয়া যায় তার বেশির ভাগই অটোরাইস মিলের তৈরি।

MN/MSI

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *

loading...
loading...