ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-26

, ১৫ মহাররম ১৪৪০

পাট উৎপাদন ও রফতানি আয় বাড়ছে

প্রকাশিত: ১০:০৮ , ১৩ মার্চ ২০১৭ আপডেট: ১০:০৮ , ১৩ মার্চ ২০১৭


দেশে পাটের উৎপাদন বাড়ছে। বাড়ছে কাঁচা পাট ও পাটজাত পণ্য রফতানি থেকে আয়ও। পাটখড়ি পোড়ানো ছাই রফতানি করেও আয় হচ্ছে। সরকারের সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে এসব তথ্য। 

দেশের পাট শিল্প নিয়ে নতুৃন করে জেগে ওঠা স্বপ্ন কতটা স্থায়ী হবে তা এখনি নিশ্চিত নয়। তবে, স্বাধীনতার পর ৩৮ বছরে কাঁচা পাট ও পাটজাত পণ্য থেকে রফতানি আয় যেখানে কখনই সাড়ে পাঁচ’শ মিলিয়ন ডলার ছাড়ায়নি সেখানে ২০১০ সাল থেকে তা’ প্রায় ৮’শো মিলিয়ন ডলারে উঠে আসে। সেই থেকে এখন পর্যন্ত এ রপ্তানী আয় প্রতি বছর ৮’শো থেকে এক হাজার মিলিয়ন ডলার। এছাড়াও তৈরি হচ্ছে পাটের শাড়ি, চমকে দেবার মতো পাটের ‘চা পাতা’ আরো শতাধিক চোখ জুড়ানো পাটজাত পণ্য।

রাজিয়া সুলতানা। পাট পণ্যের একজন উদ্যোক্তা। তার কারখানায় একশো থেকে একশো পঁচিশ ধরণের পাটজাত পণ্য তৈরি করা হয়। এরমধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ব্যাগ, হোম স্লিপার, শো-পিস থেকে শুরু করে ঘর সাজানোর পণ্য। দেশের ভেতরেই এসবের চাহিদা প্রচুর। বড় শিল্প কারখানার মালিক হলেও পাট শিল্পের প্রতি বিশেষ ভালোবাসা থেকে রাজিয়ার এই উদ্যোগ।

রাজিয়ার উদ্যোগ কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করছে। তার কর্মীরা সোনালী আঁশের সূতো বুনে যেন পণ্য নয়; গড়ছেন ভাগ্য।

পাট শিল্পকে উৎসাহিত করতে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পড়ছেন পাটের শাড়ি। এই শিল্পে নতুন নতুন উদ্ভাবনী চিন্তার ছোঁয়া লাগছে। তৈরি হচ্ছে ‘জুট টি’ নামে পাটের চা, শুরু হয়েছে রপ্তানীও।

নব্বইয়ের দশকে পলিথিনের ব্যাগের ব্যবহার উৎসাহিত করা হয়েছিলো যা চটের ব্যাগের ব্যবহার ধ্বংস করে। এখন সরকার আইন করে পাট পণ্যের ব্যবহার করছে বাধ্যতামূলক। এতে দেশের অভ্যন্তরে ইতোমধ্যে ৩০ ভাগ ব্যবহার বেড়েছে।

১৯৬২ সালের পাট অধ্যাদেশ বাতিল করে নতুন পাট আইন, পাট নীতিসহ নানা আয়োজন বেসরকারি উদ্যোক্তা ও রপ্তানীকারকেদের জন্য ধারাবাহিক উদ্দীপনা।
পাটখড়ি পোড়ানো ছাইও যে রপ্তানীযোগ্য, তার উদাহরণ গত অর্থবছরে এক্ষেত্রে ২’শো কোটি ডলারের রপ্তানী আয়। পাট শিল্প যেন সৃজনশীলতা বিকাশের এক নতুন দিগন্ত।

পাট শিল্পের বিকাশের জন্য প্রয়োজন উন্নত মানের বিপুল পাটের উৎপাদন। নানান সুবিধা দেবার ফলে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের চেয়ে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে পাটের উৎপাদনও ১৪ লাখ বেল বেশি হয়েছে।
 

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is