করোনায় থমকে আছে তাঁতশিল্প

প্রকাশিত: ১০:১৩, ২৮ জুলাই ২০২১

আপডেট: ১০:৫৮, ২৮ জুলাই ২০২১

ফারহানা জুঁথী: করোনা অতিমারিতে অনেকটাই থমকে আছে দেশের তাঁত শিল্প। অঞ্চল ভেদে তাঁতের ধরন আলাদা হলেও এই মহামারিতে সংশ্লিষ্টদের সংকট প্রায় একই। ছোট বড় সব বাজারেই ক্রেতা কম, তাই উৎপাদিত পণ্যের দামও কম। সুতা রংসহ তাঁতে ব্যবহৃত জিনিসের দামও বাড়তি। তাঁতিরা ন্যায্য মজুরি না পেয়ে বদল করছেন পেশা। 

তাঁত বুনে দুই যুগ ধরে সংসার চালান মধ্য বয়সী ইদ্রিস আলী। করোনার প্রার্দুভাবে খুচরা ও পাইকারি দুই বাজারেই চাহিদা কমে গেছে। তাতে আয় উপার্জনও কমে গেছে তার। 

খুট খাট অবিরাম ছন্দময় শব্দ তাঁত গ্রামের স্পন্দন, করোনাকালে তা যেন বন্ধ হওয়র পথে, কোথাও আবার চলছে ধুকে ধুকে। তাঁত মালিকরা জানান বাজার ধরে রাখতে পন্যের দাম কমিয়েছেন তারা। কিন্তু সুতা, রং এর দাম অনিয়ন্ত্রিত। গেলো বছর থেকেই ঈদ, পূজা, বৈশাখসহ কোন উৎসব স্বাভাবিক পরিসরে না হওয়ায় বিক্রি অনেক কমে গেছে। এ অবস্থায়  শ্রমিকদের মজুরি প্রদান ও কাঁচামাল সংগ্রহ করার ক্ষমতা হারিয়েছেন অনেক তাঁত মালিক। 

বেশিরভাগ তাঁতি তাই ঋণগ্রস্ত। কিছু তাঁতি সরকারি ঋণ সহায়তা পেলেও তৃনমূলের বেশির ভাগ তাঁতি এ সর্ম্পকে কিছুই জানেন না।  

তাঁত ও সংশ্লিষ্টরা গেল বছর থেকেই করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত। তবে কত তাঁত বন্ধ হয়ে গেছে, কতজন পেশা ছেড়েছেন তার সঠিক হিসেব নেই তাঁত বোর্ডের কাছে। তারা বলছেন, প্রতিকূল পরিবেশে দক্ষতা নির্ভর এই তাঁত শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে প্রায় ত্রিশ কোটি টাকা সুদ মুক্ত ঋণ সহায়তা দিয়েছে সরকার। রং ও সুতার দাম নীতিমালার আওতায় আনা ও সরকারি সহযোগীতার দাবি তাঁত সংশ্লিষ্টদের। 

FEJ/MSI

এই বিভাগের আরো খবর

ডেসটিনির অচলাবস্থা অবসানের পথ খুঁজছে সরকার

ফাহিম মোনায়েম: ডেসটিনি গ্রুপের সম্পদ...

বিস্তারিত
ক্যাসিনোকাণ্ড ক্লাবগুলোতে এখনো তালা

ক্রীড়া ডেস্ক: ক্যাসিনো কেলেংকারির...

বিস্তারিত
সরকারকে চাপে রাখার কৌশল বিএনপি'র

নিজস্ব প্রতিবেদক: নির্দলীয় ও...

বিস্তারিত
রাজধানীতে আবারো বেড়েছে বায়ু দূষণ

ফাহিম মোনায়েম: রাজধানীতে আবারো বাড়ছে...

বিস্তারিত
উড়োজাহাজের শহর!

অনলাইন ডেস্ক: শহরের নাম ক্যামেরন...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *