পৌরসভা নির্বাচন; বিএনপির চার মেয়র প্রার্থীর ভোট বর্জন

প্রকাশিত: ০১:১১, ১৬ জানুয়ারি ২০২১

আপডেট: ০৪:৫৩, ১৬ জানুয়ারি ২০২১

নিজস্ব সংবাদদাতা: ফেনীর দাগনভূঞা পৌরসভা নির্বাচনে একাধিক কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের সাথে বিএনপির প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময়, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ককটেল বিস্ফোরণে ভোটারসহ আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। পরে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। 

এদিকে, বাগেরহাটের মোংলা পোর্ট পৌরসভা নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী জুলফিকার আলিসহ ১৩ কাউন্সিলর প্রার্থীরা ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। মোংলায় ভোট বর্জনকারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে জামায়াত সমর্থিত দুজনসহ মোট ৯ জন রয়েছেন। এছাড়া ৪ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীও ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন।

আজ শনিবার(১৬ জানুয়ারি) সকাল ১০টা ৪৫মিনিটে বিএনপির মেয়র প্রার্থী জুলফিকার আলীর মোংলা পৌরসভার মাদরাসা রোডের নিজ বাসভবনে প্রার্থীরা এ ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। তাদের ভোট বর্জনের বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা বা নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কারও বক্তব্য তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি।

অন্যদিকে, রাজশাহীর ভবানীগঞ্জ পৌরসভায় বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আবদুর রাজ্জাক প্রামাণিক শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পৌর এলাকায় নিজের বাড়িতে সাংবাদিকদের সামনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, শহীদ সেকেন্দার মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আমি আমার নিজের ভোটটা দিতে গিয়েছিলাম। নৌকার সমর্থকরা আমাকে আমার ভোটটাই দিতে দেয়নি। কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়া হয়নি। বাংলাদেশের ইতিহাসে কোথাও এমন হয়েছে যে প্রার্থী তার নিজের ভোট দিতে পারেননি? এমন ভোটে থেকে লাভ কী? তিনি অভিযোগ করেন, কোন কেন্দ্রে বিএনপি প্রার্থীর এজেন্ট নেই। সবাইকে বের করে দেয়া হয়েছে। আর তিনি যখন ভোট দিতে যান তখন কেন্দ্রে তাকে লাঞ্ছিতও করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে তিনি ভোট বর্জন করছেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র আবদুল মালেক বলেন, এখন বেলা ১১টা। ভোট যা হওয়ার হয়ে গেছে। এখন ভোট বর্জন করে লাভ আছে? 

তিনি বলেন, ভোট বর্জনের কথা এখনও শুনিনি। সব জায়গায় বিএনপির এজেন্ট আছে। শুনলাম ১৫-২০ জন নিয়ে গিয়ে বিএনপি প্রার্থী ভোট দিয়েছেন। এখন নিশ্চিত পরাজয় দেখে হয়ত ভোট বর্জন করছেন।

এদিকে, পাবনার ঈশ্বরদীতে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগ করেছেন বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম। পরে তিনি ভোটবর্জনের ঘোষণা দেন। 

এছাড়া, কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর পৌরসভায় বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী নূরুল মিল্লাত ভোট গ্রহণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ এনে নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। আজ শনিবার কুলিয়ারচরের বেতিয়ারকান্দি এলাকায় জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলমের বাড়িতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেন। 

এই বিভাগের আরো খবর

৩৭১ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট ১১ই এপ্রিল

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রথম ধাপে ৩৭১টি...

বিস্তারিত
সিইসি ও মাহবুব তালুকদারের বাকযুদ্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভোটার দিবসের...

বিস্তারিত
ভোটার দিবসের উদ্বোধন

নিজস্ব সংবাদদাতা: দেশে তৃতীয়বারের...

বিস্তারিত
জাতীয় ভোটার দিবস আজ

অনলাইন ডেস্ক: আজ দোসরা মার্চ...

বিস্তারিত
২৯টি পৌরসভায় বিজয়ী হলেন যারা

ডেস্ক প্রতিবেদন: শেষ ধাপের ২৯টি...

বিস্তারিত
কারো নির্বাচন প্রত্যাখ্যান ব্যক্তিগত বিষয়: ইসি

নিজস্ব প্রতিবেদক: পঞ্চম ধাপের পৌরসভা...

বিস্তারিত
ইউপি নির্বাচনে অংশ নিবে না বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক: আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ...

বিস্তারিত
বিচ্ছিন্ন ঘটনায় ২৯ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ শেষ

ডেস্ক প্রতিবেদন: দু’একটি বিচ্ছিন্ন...

বিস্তারিত
রাত পোহালেই ২৯ পৌরসভায় ভোট

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের ২০টি জেলার...

বিস্তারিত
মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে পৌর নির্বাচনের প্রচারণা

ডেস্ক প্রতিবেদন: আর একদিন পরই ২০টি...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *