ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১ পৌষ ১৪২৪, ২৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
শিরোনামঃ
চির নিদ্রায় শায়িত চট্টল বীর মহিউদ্দিন চৌধুরী মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে চট্টগ্রামে শোকের ছায়া মানুষের অন্তরে মহিউদ্দিন চৌধুরী জননেতা হিসেবেই বেঁচে থাকবেন স্বপ্নের ফেরিওয়ালা মহিউদ্দিন চৌধুরী মহান বিজয় দিবস উদযাপনে দেশজুড়ে নানা আয়োজন  সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বারবার হোচট খেয়েছে বাংলাদেশ নাটোরে চালু হয়নি কৃষকদের ৫টি শস্য মার্কেট কুমিল্লায় বাস চাপায় নিহত দুই রংপুর সিটি নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ মুহূর্তে জমজমাট রাজধানীর বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে দ্বিগুণ টি-টেন ক্রিকেট লিগে কেরেলা কিংসের জয় হাসপাতালে জনবল-শয্যার অভাবে চিকিৎসা বঞ্চিত ঝিনাদহের নিউমোনিয়া আক্রান্ত শিশুরা পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী হিসেবে সৌদি বাদশাহর স্বীকৃতি নির্বাচনের আগে সংস্কারের জন্য ৩১ প্রস্তাবনা চূড়ান্ত  নেপালে নির্বাচনে বামপন্থী জোটের জয় চট্টগ্রামে রেডকিন সমাধিতে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর শ্রদ্ধা ত্রিদেশীয় ও বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সিরিজের সময়সূচি ঘোষণা রংপুর সিটি নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীকে সরিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র হচ্ছে টাঙ্গাইলে ৩০ কিলোমিটার এলাকায় যানজট  থার্টিফার্স্ট নাইটে উন্মুক্ত স্থানে কোনো অনুষ্ঠান নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

দেশে মুদ্রণ বাণিজ্যের বিকাশ ঘটলেও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে

প্রকাশিত: ০৪:৩২ , ২০ জুলাই ২০১৭ আপডেট: ০৪:৩২ , ২০ জুলাই ২০১৭

বিশেষ প্রতিবেদন: মুদ্রণ শিল্পের বিশ্ব বাজার ৭২৪ বিলিয়ন ডলারের। দেশে মুদ্রণ বাণিজ্যের বিকাশ ঘটলেও, বিশ্ববাজারের ব্যবসা ধরার ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা থেকে বাংলাদেশ এখনও অনেক পিছিয়ে। এজন্য দেশীয় মুদ্রণ শিল্পে নানান সীমাবদ্ধতা ও প্রতিবন্ধকতাকে দায়ী করেন সংশ্লিষ্টরা।

দেশের মুদ্রণ শিল্পে বাৎসরিক বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকার, যার মধ্যে মাত্র ১৬০ কোটি টাকা আসে পোশাক খাতসহ রপ্তানিকৃত বিভিন্ন পণ্যের প্যাকেজিং-এর কাজ করে।

প্রতিবছরই মুদ্রণ শিল্পের বাণিজ্য বৃদ্ধির যে প্রবণতা, তা অব্যাহত থাকার ব্যাপারে আশাবাদী সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশ মুদ্রণ শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদক জহুরুল ইসলাম জানান, আফ্রিকার দেশগুলোতে বাণিজ্যের সম্ভাবনা রয়েছে।

এই শিল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ খাতের বাণিজ্যের চেহারা আরও ভালো হওয়ার সুযোগ রয়েছে।

কিন্তু বেসরকারী পর্যায়ে মুদ্রণ খাতে বিদ্যমান আয়োজনে যে পরিমাণ কাজ করার সক্ষমতা রয়েছে, সেই তুলনায় কাজ হয় মাত্র ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ।

তথ্য ও প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ মোস্তফা জব্বার বলেন, প্রতি বছর পাঠ্যবই ছাপানো থেকেই উৎপাদন ক্ষমতা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায় । কিন্তু পরবর্তীতে কাজের অভাবে মুদ্রণ কারখানাগুলোকে অলস বসে থাকতে হয়। এই অলস সময়টাকে কাজে লাগানোই বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করেন তিনি।

মুদ্রণ শিল্পে বিশাল বেসরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সরকারেরও রয়েছে বিপুল আয়োজন। বিজি প্রেস নামে পরিচিত প্রতিষ্ঠান সরকারের সবচেয়ে বড় মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান, যেখান থেকে সরকারের যাবতীয় মুদ্রণের সিংহভাগ জিনিস ছাপা হয়। 

এ ছাড়াও বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, বাংলা একাডেমি, জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রসহ এমনি বহু সরকারি প্রতিষ্ঠান আছে যাদের নিজস্ব মুদ্রণের আয়োজন রয়েছে। টাকা ছাপার জন্যেও রয়েছে বিশেষ আয়োজন।
 

এই বিভাগের আরো খবর

স্বাধীনতার ৪৬ বছর

সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে সমন্বিত উদ্যোগ চান বিশ্লেষকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : নাগরিকের নিরাপত্তা নিশ্চিতের ধারণাটি অনেক বিস্তৃত ও ব্যাপক, যেই খাত বিজয়ের ৪৬ বছরে অনেক সাফল্যের মাঝেও বড় ম্লান।...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is