ব্যয়বহুল হলেও বেড়ে চলেছে স্টেইনলেস স্টিলের ব্যবহার আপডেট: ০৪:১৪, ১৭ জুলাই ২০১৭

বিশেষ প্রতিবেদন: ব্যয়বহুল হলেও স্টেইনলেস স্টিলের ব্যবহার বেড়ে চলেছে দ্রুতগতিতে। এর কারণ হিসাবে এ শিল্পের উদ্যোক্তা ও পর্যবেক্ষকরা বলছেন, স্টেইনলেস স্টিল অনেক টেকসই ও নিরাপদ। স্টিল সামগ্রীর উৎপাদনকারীরা শুরুটা হয়েছিল পাইপ ও রড দিয়ে। পরবর্তীতে চাহিদা বিবেচনায় রান্না ও খাবারের সামগ্রী, পার্কিং ও গার্ডেন চেয়ার, হাসপাতালের বিছানা, আলমারি, বাথরুম ফিটিং-সহ নানা পণ্যের উৎপাদনে ব্যবহার করা হয়েছে স্টিল।

বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় অনেক আগে থেকে স্টিলের ব্যবহার হয়ে আসলেও দেশের মানুষ এর ব্যবহারের সাথে পরিচিত ছিল না। বহুতল ভবন স্টিলের কাঠামোর উপর তৈরি করা যায়, দেশের মানুষ এই বিষয়ে জানতে পেরেছে মাত্র এক থেকে দেড় দশক ধরে।

এ বিষয়ে স্টিলটেক-এর প্রধান নির্বাহী ও পরিচালক মাসুম আহমেদ বলেন, স্টেইনলেস স্টিল তুলনামূলক মজবুত হওয়ার কারণেই উন্নত দেশগুলোতে এর ব্যবহার বেড়ে গেছে। ভূমিকম্পে যেকোনো স্থাপনা ভেঙে যাওয়ার আশংকা, স্টেইনলেস স্টিল তা অনেকাংশেই রোধ করতে পারে।

এদিকে দেশে স্টেইনলেস স্টিলের নিজস্ব সামগ্রী তৈরির শিল্প গড়ে ওঠায় কর্মসংস্থানও বেড়ে গেছে। নিবন্ধনের হিসাব অনুসারে দেশে গত ১৭ বছরে স্টেইনলেস স্টিল তৈরির ২০টি কারখানা গড়ে উঠেছে। এসব স্টিল দিয়ে নানান সামগ্রী তৈরি জন্য রয়েছে আরো অনেক কারখানা।

জ্বালানি বিদ্যুতের সহজলভ্যতা থাকায় স্টেইনলেস স্টিল কারখানাগুলো গড়ে উঠছে মূলত গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, কেরানিগঞ্জ এবং চট্টগ্রাম এলাকায়। এই শিল্পোদ্যোক্তারা জানান, এ ধরনের উৎপাদনক্ষম কারখানার ফলে হাজারো মানুষের কর্মসংস্থানের জায়গা তৈরি হচ্ছে।

তবে স্টেইনলেস স্টিল দেশে তৈরি হলেও এর প্রধান কাঁচামাল সিআর কয়েল পুরোটাই আমদানি করতে প্রতিবেশী দেশ ভারত থেকে। দেশে লোহার কোনো খনি না থাকার কারণেই এর কাঁচামাল আমদানি করতে হচ্ছে বলে জানালেন সংশ্লিষ্টরা।