পুরনো অধ্যাদেশ দিয়েই চলছে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক

প্রকাশিত: ১০:১১, ২২ অক্টোবর ২০২০

আপডেট: ০১:১৯, ২২ অক্টোবর ২০২০

এজাজুল হক মুকুল: ৩৮ বছরের পুরনো অধ্যাদেশ দিয়েই পরিচালিত হচ্ছে দেশের সব বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক। অধ্যাদেশটি পরিবর্তন করে আইন করার কথা থাকলেও তা হয়নি এখনো। স্বাস্থ্যখাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কার্যকর আইন করা না হলে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবার মান ও ব্যয়ের পরিমাণ নিশ্চিত করা যাবে না। নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না অনিয়ম-দুর্নীতি। ফলে দুর্ভোগ কমবে না সাধারণ মানুষের। এব্যাপারে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা থাকলেও, তা বাস্তবায়নের কোন উদ্যোগ নেই। 

করোনা অতিমারির সময়ে দেশের বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবার নানা অনিয়ম চোখে পড়েছে সবার। প্রশ্ন ওঠেছে চিকিৎসা সেবার মান ও ব্যয়ের পরিমাণ নিয়েও। স্বাস্থ্য খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এমন পরিস্থিতির জন্য দায়ি আইনি কাঠামোর অভাব। বেসরকারি স্বাস্থ্য খাত এখনো পরিচালিত হয় ১৯৮২ সালের ‘মেডিকেল প্র্যাকটিস অ্যান্ড প্রাইভেট ক্লিনিকস এন্ড ল্যাবরেটরিজ অধ্যাদেশ’ দিয়ে। 

এই অধ্যাদেশ অনুযায়ি অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপকের রোগি দেখার ফি ৪০ টাকা। বড় ধরণের অস্ত্রোপচারের ব্যয় ধরা হয়েছে দুই হাজার টাকা। ইউরিন টেস্ট, প্রেগন্যান্সি টেস্টসহ ১০৫ ধরনের ল্যাব টেস্টের ফিও নির্ধারণ করা আছে এমনই অনুপাতে। ৩৮ বছরেও এই অধ্যাদেশের কোন সংশোধন হয়নি, পরিবর্তন হয়নি মূল্য তালিকা। ফলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলো ইচ্ছামাফিক বিল নির্ধারণের সুযোগ নিচ্ছে। 

এই ব্যাপারে ২০১৮ সালে একটি রিট দায়ের করেন সুপ্রিমকোর্টের একজন আইনজীবী। রিটে বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন পরীক্ষার মূল্য তালিকা ও চিকিৎসা ব্যয় নতুন করে নির্ধারণ করার আবেদন জানানো হয়। শুনানি শেষে আদালত কিছু নিদের্শনা দিলেও তা এখনো বাস্তবায়িত হয়নি। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিপুল সংখ্যক মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে বেসরকারি হাসপাতালে তদারকি বাড়ানোর বিকল্প নেই। ৩৮ বছরের পুরনো বিধান দিয়ে বেসরকারি খাতের স্বাস্থ্যসেবা পরিচালনা অসম্ভব। বিশৃঙ্খলা এড়াতে প্রয়োজন যুগোপযোগী আইন। 

এর আগে বেশ কয়েকবার অধ্যাদেশটি পরিবর্তন করে আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হলেও তা চূড়ান্ত রূপ পায়নি। 
 

এই বিভাগের আরো খবর

মুলায় বাড়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

অনলাইন ডেস্ক: মূলা শীতকালীন একটি...

বিস্তারিত
কম ঘুমালে কী কী ক্ষতি

অনলাইন ডেস্ক: সারা দিনের কাজকর্মের পর...

বিস্তারিত
এক যুগ ধরে বন্ধ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ

লাবণী গুহ: দীর্ঘ এক যুগ ধরে সরকারী...

বিস্তারিত
অসংক্রামক রোগে মৃত্যুর হার বাড়ছে 

লাবণী গুহ: দেশে প্রতিবছরই অসংক্রামক...

বিস্তারিত
দেশে প্রতিবছরই বাড়ছে ডায়াবেটিস রোগী

লাবণী গুহ: দেশে প্রতিবছরই বাড়ছে...

বিস্তারিত
নিউমোনিয়ায় প্রতিদিন মারা যায় ৬৭ শিশু

লাবণী গুহ: নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *