ইউআইটিএসের চাঁদাবাজির মূল আসামি কারাগারে

প্রকাশিত: ০৫:২০, ২৭ জুলাই ২০২০

আপডেট: ০৫:৩৮, ২৭ জুলাই ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় 'ইউআইটিএস' এর কাছে ৬০ কোটি টাকার চাঁদাবাজির মামলার মূল আসামি বারিধারার জামালপুর টুইনটাওয়ার এর মালিক শওকত হাসান মিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। ঢাকার ভাটারা থানায় দায়ের করা ওই মামলায় আজ (সোমবার) ঢাকা মহানগর হাকিম বাকি বিল্লাহ তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। 

ইউআইটিএস এর পক্ষে আইনজীবী হিসেবে মামলা পরিচালনা করেন যুবাইরুল ইসলাম ও আবদুল মান্নান ভূঁইয়া। আসামি শওকত হাসানের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ঢাকা বার এর সভাপতি ইকবাল হোসেন।

মামলার বিবরণী থেকে জানা যায়, প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চাঁদা দাবির ঘটনায় গত ২ জানুয়ারি রাজধানীর ভাটারা থানায় শওকতকে প্রধান আসামি করে মামলা করেন ইউআইটিএসের উপাচার্যের ব্যক্তিগত সহকারী মো. মোস্তফা কামাল। তার বিরদ্ধে ১৮৬০ সালের দণ্ডবিধির ৩৮৫ ও ৫০৬ ধারায় ভয়ভীতির মাধ্যমে চাঁদা দাবি ও অপরাধমূলক ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ আনা হয়। এসব ধারায় অভিযোগ প্রমাণিত হলে সর্বোচ্চ ১৪ বছর কারাদণ্ড হতে পারে আসামির।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, শওকত হাসানের মালিকানাধীন গুলশানের বারিধারা এলাকায় অবস্থিত ‘জামালপুর টুইন টাওয়ার-২’ ভাড়া নিয়ে ২০১০ থেকে ২০১৯ সালের অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করে ইউআইটিএস। এরইমধ্যে ভাটারা এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয়টির স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণ শেষ হলে ২০১৯ সালের মে মাস থেকে স্থায়ী ক্যাম্পাসে স্থানান্তর শুরু হয়। একইসঙ্গে ইউআইটিএস উপাচার্যও স্থায়ী ক্যাম্পাসে অফিস শুরু করেন।

গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত শওকত হাসান ও তার ক্যাডাররা উপাচার্যের কাছে বিভিন্ন সময় প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে ৬০ কোটি টাকা চাঁদা দাবি করা ছাড়াও মালামাল স্থানান্তরে বাধা দেন। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ১৯ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় ৫ থেকে ৬ জন সশস্ত্র ক্যাডার নিয়ে উপাচার্যের গাড়ি আটকে ৬০ কোটি টাকা চাঁদা দাবি করেন শওকত হাসান। চাঁদা না পেয়ে পিস্তল উঁচিয়ে হুমকি ও প্রাণনাশের ভয়ভীতিও দেখান তিনি। পরদিন ২০ নভেম্বর এ বিষয়ে ভাটারা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এ মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন নেন শওকত। তবে জামিনের মেয়াদ শেষ হলেও দীর্ঘদিন ধরেই পলাতক থেকে সোমবার আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান তিনি। আদালত তার আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান।

এ বিষয়ে ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুজ্জামান বলেন, ইউআইটিএস’র উপাচার্যকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে ৬০ কোটি চাঁদা দাবির ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্তে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। 
 

এই বিভাগের আরো খবর

কক্সবাজারের সার্ভেয়ার ওয়াসিমের জামিন বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক: ৯৩ লাখ ৬০ হাজার ১৫০...

বিস্তারিত
আশরাফুন্নেসার দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে দুদক

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভুয়া বিল-ভাউচার করে...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *