দুর্দিনে পত্রিকার হকাররা, ফিরছেন গ্রামে

প্রকাশিত: ০৭:১৩, ০২ জুলাই ২০২০

আপডেট: ০৯:৩৬, ০২ জুলাই ২০২০

পার্থ রহমান: করোনার দুর্যোগকালে কষ্টে দিন কাটছে পত্রিকার হকারদের। পত্রিকার গ্রাহক কমে যাওয়ায় হকারদের রোজগারও কমে গেছে। টিকে থাকতে না পেরে অনেকে রাজধানী ছেড়ে গ্রামে চলে গেছেন। আবার কেউ কেউ পেশা ছেড়ে অন্য পেশা খুঁজে নিচ্ছেন। অবস্থায় সংবাদপত্রের মালিক সরকারের কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন হকাররা।

সাত সকালে পত্রিকার পাতা উল্টাতে উল্টাতে গোটা দুনিয়ার খবরে চোখ বোলানো শহুরে মানুষের রোজকার অভ্যাস। কিন্তু করোনা মহামারি যেনো সেই অভ্যাসটাও পাল্টে দিয়েছে। সংক্রামিত হওয়ার ভয়ে বেশিরভাগ মানুষই এখন বাসায় পত্রিকা রাখেন না।

ঢাকার মহাখালীর টিবি গেইট এলাকায় প্রায় একযুগ ধরে মানুষের ঘরে ঘরে সংবাদপত্র পৌঁছে দেয়ার কাজ করেন মধ্যবয়সী হকার আলম। করোনার আগে তার গ্রাহক ছিলো ৪০০ জন। কিন্তু এখন তার গ্রাহক কমে হয়েছে ১৫০ জন।

পত্রিকার বেঁচার কমিশনই তাদের একমাত্র রোজগার। গ্রাহক কমে যাওয়ায় সেই রোজগারে টান পড়েছে। অনেকেই এই পেশা ছেড়ে দিচ্ছেন।

হকার্স সমিতির তথ্যমতে, করোনা শুরুর আগে ঢাকায় ১০ থেকে ১২ হাজার হকার ছিল। সারাদেশে তাদের সংখ্য ২০ হাজার। ঢাকায় এখন হকারের সংখ্যা হাজারে নেমেছে। একইভাবে সারাদেশেও তাদের সংখ্যা কমেছে।

ঢাকা সংবাদপত্র হকার্স বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক মো: আব্দুল মান্নান জানিযেছেন, সমিতির হিসাবে সারা দেশে বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকার ১২ লাখ কপি বিক্রি হতো গত মার্চ মাসেও। আর এখন বিক্রি হয় মাত্র লাখ।

গ্রাহক কমলেও মানুষের কাছে খবর পৌঁছে দিতে রাত জেগে পত্রিকা ছাপা চলছে আগের মতই।

এই বিভাগের আরো খবর

ভূমি ও গৃহহীনদের জন্য মুজিববর্ষের উপহার

শাহনাজ ইয়াসমিন: মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে...

বিস্তারিত
রাজধানীর যানজট কমাবে ১০টি ইউলুপ

সুমন তানভীর: রাজধানীর যানজট কমিয়ে...

বিস্তারিত
রিকন্ডিশনড গাড়ির ব্যবসায় মন্দাভাব

ইউসুফ রানা: করোনা অতিমারির নেতিবাচক...

বিস্তারিত
ডিজিটাল সেন্টারে মিলছে ২৭০ ধরণের সেবা 

ফারহানা জুঁথী: ডিজিটাল সেন্টার এখন...

বিস্তারিত
চামড়ার জুতা শিল্পে কমেছে রপ্তানী আয়

ইউসুফ রানা: সম্ভাবনাময় চামড়া খাতের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *