করোনার পর অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে পরিবেশ রক্ষা গুরুত্বপূর্ণ 

প্রকাশিত: ০৯:০৯, ০৫ জুন ২০২০

আপডেট: ০৯:১০, ০৫ জুন ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাকালে পরিবেশের যে সুন্দর রূপ দেখা গেছে তা আগামী দিনে ধরে রাখার উদ্যোগ নিতে হবে বলে জানিয়েছে, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, উন্নয়ন ও গবেষণা সংস্থার তরুণ কর্মীরা । বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষ্যে ব্র্যাক জলবায়ু পরিবর্তন কর্মসূচি আয়োজিত "পরিবেশ রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় তারুণ্য" শীর্ষক ওয়েবিনারে বক্তব্য রাখেন তারা । 

এসময় ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট-এর গবেষণা সহযোগী রুখসার সুলতানা বলেন, জলবায়ু পরিবির্তনের সাথে জনস্বাস্থ্যের সম্পর্ক নিয়ে গবেষণায় ঘাটতি আছে। এখন এদিকে নজর দেয়ার সময় এসেছে।

ইউনিভার্সিটি ওব কোপেনহেগেনে জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে অধ্যয়নরত আনিমা আশরাফ বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় তরুণদের অংশগ্রহণ এখনও কম। আগামী দিনে তরুণদের অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ফারহান সাকিব বলেন, কোভিড-১৯ মোকাবিলার কর্মপরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে ঘাটতি আছে। এ ক্ষেত্রে সবাই সমন্বিতভাবে কাজ করাটা জরুরী। 

গার্বেজম্যান এর প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম উদ্দিন শুভ বলেন, এই মহামারি নিয়ন্ত্রণে একটা বড় ভূমিকা রাখছে পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা। তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা দরকার। এছাড়া আগামী দিনে নতুন জীবন ব্যবস্থা কেমন হবে তাও ঠিক করা দরকার। এরপর বিশিষ্টজনদের মধ্যে প্রথমে বক্তব্য রাখেন ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট-এর পরিচালক ড. সালীমুল হক। তিনি বলেন, আমরা এমনিতেই জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলা করছি। তার ওপর চেপে বসেছে করোনা মহামারি। এমন বিপদের সময় উপকূলে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় আম্পান। এই সমস্ত কিছু পরিবেশের সাথে সম্পর্কিত। আমরা যদি আমাদের ভবিষ্যৎকে সুরক্ষিত ও সুন্দর দেখতে চাই তাহলে, অবশ্যই পরিবেশ রক্ষার বিষয়টি উন্নয়ন পরিকল্পনায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে এবং তা যথাযথ বাস্তবায়ন করতে হবে। 

জলবায়ু পরিবর্তন কর্মসূচি, ব্র্যাক ও ব্র্যাক ইন্টারন্যাশনাল এবং আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম, ব্র্যাক এর পরিচালক ড. মো. লিয়াকত আলী মনে করেন, প্রাকৃতিক সম্পদের অপব্যবহার থামাতে না পারলে আমরা বেঁচে থাকতে পারবো না। ভবিষ্যতে উন্নয়ন কর্মসূচি সুচিন্তিতভাবে নিতে হবে, যাতে পরিবেশ রক্ষা করা যায়।

অন্যদিকে আমাদের চিকিৎসা বর্জ্য ব্যবস্থাপনা আগে থেকেই নাজুক। এখন তার সাথে যুক্ত হয়েছে কোভিড-১৯ বর্জ্য। এ ব্যপারে খুবই যতœশীল হতে হবে। না হলে সংক্রমণের ব্যপ্তি আরও বাড়বে। করোনাভাইরাস সম্পর্কিত বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি সমন্বিত উদ্যোগ দরকার। যেখানে তরুণদেরও কাজে লাগানোর আহ্বান জানান তিনি। 

এই বিভাগের আরো খবর

রিজার্ভ থেকে ঋণ নেয়ার প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের রিজার্ভ থেকে...

বিস্তারিত
বিএনপি করোনা নিয়ে মিথ্যাচার করে যাচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: মানুষের পাশে না...

বিস্তারিত
বারিধারায় ট্রাক চাপায় যুবক নিহত 

অনলাইন ডেস্ক: রাজধানীর গুলশান...

বিস্তারিত
সরকারের অজ্ঞতায় করোনা সারাদেশে: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপি মহাসচিব...

বিস্তারিত
গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫৫, শনাক্ত ২৭৩৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে করোনাভাইরাসে...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *