যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে যেসব দেশে ছড়ালো বিক্ষোভ

প্রকাশিত: ০৫:৪৩, ০২ জুন ২০২০

আপডেট: ০৫:৪৩, ০২ জুন ২০২০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কৃষ্ণাঙ্গ যুবককে নির্যাতনের পর মৃত্যুর ঘটনায় বিক্ষোভের আগুন যুক্তরাষ্ট্র পেরিয়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশেও ছড়িয়ে পড়েছে। সোমবার ফ্রান্সের প্যারিসে মাস্ক পরে হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে প্রতিবাদ মিছিলে অংশ নেয় সাধারণ মানুষ। এ সময় তারা হাঁটু গেড়ে বসে প্রতিবাদ জানান। তাদের প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল ‘আমরা সবাই জর্জ ফ্লয়েড’। এছাড়া অনেকের প্ল্যাকার্র্ডে লেখা ছিল জর্জ ফ্লয়েডের শেষ উক্তি ‘আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না’। ব্রিটেনে ত্রাফালগার স্কয়ারে রোববার সকালে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে অংশ নেন বিক্ষোভকারীরা। লকডাউন ভঙ্গ করেই বিক্ষোভ করে তারা। লকডাউনে বড় ধরনের সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা আনা হয়েছে। রাজধানীর নাইন এইমস এলাকায় মার্কিন দূতাবাসের সামনে বেশকিছু বিক্ষোভকারীকে জড়ো হতে দেখা গেছে। এদিকে মেট্রোপলিটন পুলিশ জানিয়েছে, আইন-শৃঙ্খলা অমান্য করায় ছয়জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

শনি ও রোববার বার্লিনে মার্কিন দূতাবাসের কাছে জড়ো হয় বিক্ষোভকারীরা। সে সময় বিক্ষোভকারীদের মুখে মাস্ক ছিল এবং হাতে প্ল্যাকার্ড ছিল। সেখানে লেখা ছিল ‘কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা বন্ধ কর, আমরা বিচার চাই’। ডেনমার্কের কোপেনহেগেনে রোববার রাজপথে নেমে আসেন বিক্ষোভকারীরা। অনেকেই রাজধানীতে অবস্থিত মার্কিন দূতাবাসের বাইরে প্রতিবাদ করেছে।

ইতালির মিলান শহরে বহু মানুষকে একসঙ্গে হাঁটু গেড়ে বসে প্রতিবাদে অংশ নিতে দেখা গেছে। এ সময় তারা নিজেদের গলা চেপে ধরে জর্জ ফ্লয়েডের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরেন। তাদের পাশে রাখা প্ল্যাকার্র্ডে লেখা ছিল ‘আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না, কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা বন্ধ করো’। সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় ইদলিব প্রদেশের বিনিস শহরে আজিজ আসমার এবং আনিস হামদান জর্জ ফ্লয়েডের একটি ম্যুরাল তৈরি করেছে। সেখানে জর্জ ফ্লয়েডের ছবির পাশে লেখা ছিল ‘আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না এবং বর্ণবাদ নই’।

রোববার ব্রাজিলের রিও ডে জেনেইরোতে অবস্থান নেন বিক্ষোভকারীরা। তারা জর্জ ফ্লয়েড হত্যার বিচার চেয়ে প্ল্যাকার্ড হাতে বিক্ষোভ করেছে এবং যুক্তরাষ্ট্রের বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছে। মেক্সিকোতে মার্কিন দূতাবাসের বাইরে জর্জ ফ্লয়েডের ছবি টাঙিয়ে রাখা হয়েছে। এর সঙ্গে ফুল, মোমবাতি এবং প্ল্যাকার্ড ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

জর্জ ফ্লয়েডের হত্যাকান্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে গতকাল (সোমবার) নিউজিল্যান্ডের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ হয়েছে। লোকজন প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে বিক্ষোভ করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে কানাডায়ও। সেখানে কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার ঘটনায় শনি ও রোববার রাজপথে নেমে আসেন হাজার হাজার মানুষ।

পোল্যান্ডেও বিক্ষোভ করেছেন লোকজন। রোববার সন্ধ্যায় মার্কিন দূতাবাসের বাইরে জড়ো হন বিক্ষোভকারীরা। এ সময় অনেকের হাতেই ছিল মোমবাতি। তারা জর্জ ফ্লয়েডকে স্মরণ করেছে। গতকাল (সোমবার) একটি বড় বিক্ষোভ হয়েছে অস্ট্রেলিয়ায়। বিক্ষোভকারীরা যুক্তরাষ্ট্রের বিক্ষোভের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন শহরে আরও তিনটি সমাবেশ হওয়ার কথা রয়েছে।
 

এই বিভাগের আরো খবর

নির্যাতিত নারীদের জন্য বই লিখছেন মালালা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: নির্যাতন কিংবা...

বিস্তারিত
নেপালে বন্যা-ভূমিধসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : টানা ভারী বর্ষণের...

বিস্তারিত
অমিতাভের পর অভিষেক করোনায় আক্রান্ত

অনলাইন ডেস্ক: বলিউডের কিংবদন্তী...

বিস্তারিত
অক্টোবরেই অক্সফোর্ডের করোনার ভ্যাকসিন!

অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের প্রথম...

বিস্তারিত
দুইদিনে সাগর পথে ইতালি পৌঁছেছে ৩৬২ বাংলাদেশি

অনলাইন ডেস্ক: অবৈধপথে সাগর পাড়ি দিয়ে...

বিস্তারিত
করোনার উৎস খুঁজতে ফের চীনে বিশেষজ্ঞ দল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:  সারা বিশ্বব্যাপী...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *