‘বাংলার বঞ্চিত মানুষদের মুক্ত করতেই আমার সংগ্রাম’

প্রকাশিত: ১২:০২, ০১ জুন ২০২০

আপডেট: ০১:১০, ০১ জুন ২০২০

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছর ২০২০। তাঁর শততম জন্মবার্ষিকীর দিন, ১৭ই মার্চ থেকে শুরু হয়েছে মুজিববর্ষ উদযাপন। স্বাধীন বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু একাত্মা। তিনিই একাত্তরের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তাঁর ডাকেই মানুষ স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার দ্বারে পৌঁছানোর আগের বছরটি কেমন কেটেছিল বঙ্গবন্ধুর। সেই উত্তাল আন্দোলনে শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক দিনগুলো নিয়ে মুজিববর্ষ জুড়ে বৈশাখী সংবাদের বিশেষ ধারাবাহিক আয়োজন- যাঁর ডাকে বাংলাদেশ। 

আওয়ামী লীগের দ্বিবার্ষিক সম্মেলন নিয়ে উনিশ’শ সত্তরের মে মাসের শুরু থেকেই দলের মধ্যে জোর প্রস্তুতি চলতে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭০ সালের পহেলা জুন ঢাকায় ধানমন্ডির বত্রিশ নম্বরে নিজ বাসভবনে দলের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠক করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ মুজিবুর রহমান। বৈঠকে ৪ঠা জুন পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগের দ্বিবার্ষিক সম্মেলন এবং ৬ই জুন নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অনুষ্ঠানের দিন নির্ধারিত হয়।

বৈঠক শেষে বাইরে অপেক্ষারত দলীয় নেতা-কর্মী ও সাংবাদিকদের আলোচনা সম্পর্কে অবহিত করেন আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি বলেন, “শোষণ ও অবিচারের শৃঙ্খল হইতে দেশের ১২ কোটি মানুষকে বিশেষ করে বাংলার বঞ্চিত মানুষদের মুক্ত করার জন্যই আমার সংগ্রাম।” (সূত্রঃ ২ জুন, ১৯৭০; দৈনিক ইত্তেফাক)

শেখ মুজিব বলেন, “দাবি আদায়ের জন্য যারা প্রাণ দিয়েছিল, তাহাদের রক্তের দাগ যেন কেউ ভুলিয়া না যায়। নির্বাচনের মাধ্যমে শহীদের রক্তের বদলা নিতে হইবে।” (সূত্রঃ ২ জুন, ১৯৭০; দৈনিক ইত্তেফাক) 

 

এই বিভাগের আরো খবর

তারুণ্যে ফুটবলার ছিলেন বঙ্গবন্ধু 

বিউটি সমাদ্দার: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
৬ দফা মুক্তির সনদ: বঙ্গবন্ধু

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *