রাজধানীর কোন ভবনে পাকিস্তানের পতাকা ওড়ানো হয়নি

প্রকাশিত: ১০:৪৯, ২৩ মার্চ ২০২০

আপডেট: ১১:০৮, ২৩ মার্চ ২০২০

কাজী বাপ্পা: স্বাধীনতার সংগ্রাম, একাত্তরের সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের সাথে অবিচ্ছেদ্য নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। নিজের বিরল ত্যাগী ও সৎ রাজনীতি দিয়ে হয়েছিলেন দেশের মানুষের স্বাধীনতা ও মুক্তির প্রতীক। এবছর স্বাধীনতার মাস মার্চ ফিরেছে বিশেষ উপলক্ষ্য নিয়ে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এই মাসে। তাই এবার, একাত্তরের এই মাসে জাতির জনক শেখ মুজিবের ঐতিহাসিক পদক্ষেপগুলো নিয়ে বৈশাখী সংবাদের ধারাবহিক বিশেষ আয়োজন ‘যাঁর নামে স্বাধীনতা’।

বাংলাদেশের বেসরকারি প্রশাসনের সদর দফতর হিসেবে বঙ্গবন্ধুর ৩২নম্বর বাসভবন ছিল সবকিছুর কেন্দ্র। একাত্তরের ২৩শে মার্চ সকালে সেখানে স্বাধীন বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত পতাকা উত্তোলন করেন শেখ মুজিবুর রহমান। এসময়, আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের পক্ষ থেকে পতাকাকে সালাম জানানো হয়। 

এদিনও বঙ্গবন্ধুর ডাকা অসহযোগ আন্দোলন চলে দেশব্যাপি। রাজধানীর সরকারি-বেসরকারি ভবন, বাড়িতে, গাড়িতে পাকিস্তানী শাসকদের নির্যাতনের প্রতিবাদে কালো পতাকার পাশাপাশি বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়। কোন ভবনে পাকিস্তানের পতাকা ওড়ানো হয়নি।

২৩শে মার্চ সন্ধ্যায়, প্রেসিডেন্ট ভবনে আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সাথে বৈঠক করেন ইয়াহিয়া খানের উপদেষ্টারা। বৈঠকে আওয়ামী লীগ নেতারা একটি খসড়া শাসনতন্ত্র পেশ করেন। বৈঠক শেষে প্রেসিডেন্ট ভবনের মুখপাত্র লেফটেন্যান্ট জেনারেল পীরজাদা সাংবাদিকদের জানান, “নির্বাচিত প্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা অর্পণের পদ্ধতি চলছে। প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া একদিনের মধ্যে এ ব্যাপারে ঘোষণা দিচ্ছেন।”


 

এই বিভাগের আরো খবর

৬ দফাকে চূড়ান্ত লক্ষ্যে পৌঁছান বঙ্গবন্ধু

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
‘৬-দফাই জাতির মুক্তির সনদ’

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *