ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-19

, ৮ মহাররম ১৪৪০

রিভিউ আবেদন খারিজ : ভাংতেই হবে বিজিএমইএ ভবন

প্রকাশিত: ০৭:২০ , ০৫ মার্চ ২০১৭ আপডেট: ০৭:২০ , ০৫ মার্চ ২০১৭

রাজধানীর হাতিরঝিলে বাংলাদেশ তৈরি পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) ভবন ভাঙা সংক্রান্ত আপিল বিভাগের রায়ের রিভিউ আবেদন খারিজ করে দিয়েছে উচ্চ আদালত। ফলে ভবনটি ভাঙতে আর কোন বাধা নেই।

আজ রোববার সকালে পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী আপিল বিভাগের মামলার তালিকায় বিজিএমই ভবন সংক্রান্ত মামলাটি আসে। প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বে তিন সদস্যের আপিল বেঞ্চ ভবন ভাঙতে আপিল বিভাগের রায়ের রিভিউ চেয়ে করা আবেদন খারিজ করে দেয়। এ ছাড়া কত দিনের মধ্যে ভবনটি ভাঙতে হবে, সে-বিষয়ে আদেশ দেয়া হবে বৃহস্পতিবার। 

এর আগে গতবছরের ২ জুন হাইকোর্টের দেয়া রায় বহাল রাখে আপিল বিভাগ। পরে ৮ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে ৩৫ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়। রায়টি লেখেন বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার। আর বেঞ্চের অন্য বিচারপতিরা তাতে একমত প্রকাশ করেন।

রায়ে বলা হয়েছে, ২০১১ সালে রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো বিজিএমইএকে এ জমি দিয়েছে। কিন্তু জমির মালিকানা তাদের ছিলো না। এ ছাড়া খতিয়ানে জমিটি ডোবা হিসেবে আছে। বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ ডোবা ভরাট করে ভবন নির্মাণ করেছে, যা অবৈধভাবে করা হয়েছে বলেও রায়ে বলা হয়। 

২০১০ সালের  ২ অক্টোবর ইংরেজি দৈনিক নিউ এজ  পত্রিকায় রাজউকের অনুমোদন ছাড়াই বেগুনবাড়ি খালে বিজিএমইএ ভবন নির্মাণ হয়েছে মর্মে খবর প্রকাশিত হয়। সেদিনই সুপ্রিমকোর্টের এক আইনজীবী খবরটি আদালতের নজরে আনলে আদালত সুয়োম্যুটো রুল জারি করে। এ মামলায় আদালত ৭ জন অ্যামিকাস কিউরি নিয়োগ দেয়। দীর্ঘ শুনানিশেষে ২০১১ সালের ৩ এপ্রিল হাইকোর্ট ভবনটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়ে রায় দেয়।

পরে ঐ বছরের ৫ এপ্রিল বিজিএমইএ'র আবেদনে আপিল বিভাগ হাইকোর্টের রায় ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে। এর পর ২০১৩ সালের ১৯ মার্চ হাইকোর্টের দেয়া পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়। সে-রায়ে বলা হয়, হাতিরঝিল প্রকল্প একটি জনকল্যাণমূলক প্রকল্প। আর এই ভবনটি সেখানে একটি বিষফোঁড়ার মত। এর পর সে-রায়ের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল করে বিজিএমইএ কর্তৃপক্ষ, যা পরে খারিজ করে দেয় আদালত।

১৯৯৮ সালের ২৮ নভেম্বর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজিএমইএ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। পরে ২০০৬ সালে ভবনের উদ্বোধন করে সে সময়ের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। 
 

 

 

এই বিভাগের আরো খবর

ডাকসু নির্বাচন: আদালত অবমাননার মামলা কার্যতালিকা থেকে বাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক: হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী ছয় মাসের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন না করায় বিশ্ববিদ্যালয়ের...

খালেদার অনুপস্থিতিতে দুর্নীতি মামলার বিচার নিয়ে আদেশ ২০ সেপ্টেম্বর

নিজ প্রতিবেদক : খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার বিচারকাজ চলবে কি না এবং তার জামিন বর্ধিত হবে কি না এ বিষয়ে ২০...

সংসদে তিনটি বিল পাস

নিজস্ব প্রতিবেদক : ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে বুধবার তিনটি বিল পাস হয়েছে। বরেন্দ্র এলাকার সার্বিক...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is