এত ভয়াবহ পোড়া জীবনে দেখিনি: সামান্ত লাল

প্রকাশিত: ০২:৪৮, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

আপডেট: ০২:৪৮, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: কেরানীগঞ্জে প্লাস্টিক কারখানায় ভয়াবহ আগুনে গুরুতর দগ্ধ ১০ জনকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে। তাদের সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। অগ্নিদগ্ধ আরো জনকে ঢাকা মেডিকেলের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। অগ্নিদগ্ধ সবার শ্বাসনালি পুড়ে গেছে।

ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ণ ইনিস্টিটিউট ঢাকা মেডিকেলের বার্ণ ইউনিটে কেরানীগঞ্জের প্লাস্টিক করাখানায় অগ্নিকান্ডে দগ্ধরা যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। আর হাসপাতালের বাইরে স্বজনদের আহাজারি যেন কিছুতেই থামছে না।

ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের পর গত বুধবার রাতে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৩১ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। ওইরাতে পরদিন ১২ জন মারা যায়। আর ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায় একজন।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সন্বয়ক সামন্ত লাল সেন বলেন, এখন পর্যন্ত নিহত ১৩ জনের মধ্যে ১০ জনের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। একজনের মরদেহ ডিএনএ পরীক্ষা ছাড়া সনাক্ত করা যাচ্ছে না। এছাড়া দুটি মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

এছাড়া লাইফ সাপোর্টে আগুনে পোড়া এমন রোগীও আছে, যাদের মুখ চেনা যায় না, শ্বাসনালি খুব বাজেভাবে পুড়ে গেছে। ওখানে চিকিৎসাধীন ১০ জন রোগীর সবার ৬০ থেকে ৮০ ভাগ পুড়ে গেছে। আব্দুর রাজ্জাক নামের একজনের দেহের শতভাগ পুড়ে গেছে।

তিনি আরও বলেন, ঢামেকের বার্ন ইউনিটে যারা ভর্তি আছেন তারা সম্পূর্ণ শঙ্কামুক্ত। তাদের শরীরে ১৫ থেকে ২০ শতাংশ পোড়া আছে। আর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে এখন ১০ জন রোগীর কেউই শঙ্কামুক্ত নন।

প্রত্যেকেই আছেন লাইফ সাপোর্টে। পুড়ে যাওয়ার অবস্থা এমন যে বিগত ৪০ বছরের অভিজ্ঞতায় আমি এত ভয়াবহ বার্ন দেখিনি। গতকাল (বৃহস্পতিবার) মারা যাওয়া এক রোগীর স্ত্রী তাকে চিনতে পারেনি। পরে হাতের কাটা দেখে তাকে শনাক্ত করা হয়।

শতভাগ পুড়ে যাওয়া রোগীর অবস্থা ভালো নয় জানিয়ে তিনি বলেন, আব্দুর রাজ্জাক নামে একজন রোগীর শরীরের শতভাগ পুড়ে গেছে। যেকোনও সময় তার অবস্থার অবনতি হতে পারে।

এ সময় তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ রয়েছে চিকিৎসা যেন সঠিকভাবে হয় এবং ব্যয়ভার সরকার বহন করবে।

প্রাইম পেট অ্যান্ড প্লাস্টিক নামের কারখানাটিতে দুই বছরে তিনবার আগুন লাগে। চলতি বছরেই দুইবার আগুন লাগে। এজন্য কারখানা মালিকের গাফিলতিকেই দায়ী করছেন হতাহতদের স্বজনরা।

এই বিভাগের আরো খবর

পুরনো রূপে ঢাকা, তীব্র যানজট

ফাহিম মোনায়েম: পুরনো রূপে ফিরেছে...

বিস্তারিত
রাজধানীতে আবাসন ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর বসুন্ধরা...

বিস্তারিত
আবারও বাড়লো সোনার দাম

নিজস্ব প্রতিবেদক: আবারও সোনার দাম...

বিস্তারিত
আজও ঢাকায় ফিরছেন অনেকে

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঈদ উদযাপন শেষে...

বিস্তারিত
বিএনপি নেতা আব্দুল মান্নান আর নেই 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপির ভাইস...

বিস্তারিত
ছুটি শেষে আজো ঢাকায় ফিরছে মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রিয়জনের সাথে ঈদ...

বিস্তারিত
ঢাকায় ফিরছে মানুষ, খুলেছে অফিস

অনলাইন ডেস্ক: প্রিয়জনের সাথে ঈদ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *