ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-26

, ১৫ মহাররম ১৪৪০

জঙ্গি দমনে বাংলাদেশ সক্ষম, মন্তব্য যুক্তরাষ্ট্রের

প্রকাশিত: ১০:৩০ , ১১ মার্চ ২০১৭ আপডেট: ১০:৩০ , ১১ মার্চ ২০১৭

বাংলাদেশে সম্প্রতি জঙ্গি হামলা বাড়লেও এসব ঘটনা সরকার কঠোর হাতে দমন করেছে বলে মন্তব্য করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ২০১৬ সালের বৈশ্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের বার্ষিক প্রতিবেদনে এই মন্তব্য করা হয়েছে।

তবে, বিচার বর্হিভূত হত্যাকাণ্ড বাংলাদেশে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বড় অন্তরায় বলেও উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনে। বাংলাদেশে গুম, অবৈধভাবে আটকের সমালোচনা করা হলেও নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর বেসামরিক প্রশাসনের কর্তৃত্ব অক্ষুণ্ন রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে বাংলাদেশকে অসাম্প্রদায়িক ও বহুমতের সংসদীয় গণতন্ত্রের দেশ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এখানে নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর বেসামরিক প্রশাসনের কর্তৃত্ব থাকার কথাও বলা হয়।

সম্প্রতি বিদেশী নাগরিক, ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও মানবাধিকার কর্মীসহ ভিন্নমতাবলম্বীদের ওপর জঙ্গি হামলাগুলো কঠোরভাবে দমনের জন্য  বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসা করা হয় প্রতিবেদনে।
.
তবে, বিচারবহির্ভূত হত্যা, বেআইনি আটক ও গুমের মতো ঘটনাগুলোকে বাংলাদেশে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে বড় অন্তরায় হিসেবে দেখা হয়েছে প্রতিবেদনে। এসব ঘটনার তদন্তের ক্ষেত্রে সরকার কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছে না বলেও উল্লেখ করা হয়। নিরাপত্তা বাহিনীকে দায়মুক্তি দেয়া হচ্ছে বলেও প্রতিবেদনটিতে জানানো হয়েছে। 

বাংলাদেশে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত সহিংসতা, নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা, বাল্যবিয়ে, অনিরাপদ কর্মপরিবেশ ও দুর্বল বিচারব্যবস্থার মতো বিষয়গুলোও উদ্বেগজনক বলে মনে করছে যুক্তরাষ্ট্র। এছাড়া, গণমাধ্যম ও অনলাইনে মত প্রকাশের স্বাধীনতা না থাকাও মানবাধিকারের ক্ষেত্রে বাধা হিসেবে দেখা হচ্ছে। 
 
প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, বাংলাদেশের অধিকাংশ পোশাক কারখানায় কর্মপরিবেশের মান নীচু হলেও সম্প্রতি মানোন্নয়নের উদ্যোগ নিয়েছে কিছু কারখানা। এ ছাড়া, শিশুশ্রম আইনগতভাবে নিষিদ্ধ হলেও তার প্রয়োগ নেই বলে উল্লেখ করা হয়েছে মানবাধিকার প্রতিবেদনে। 


 

এই বিভাগের আরো খবর

জাতিসংঘ অধিবেশনে প্রথম শিশু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: তিন মাস বয়সী কন্যাশিশুকে সঙ্গে নিয়ে জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন। আর...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is