ধর্মভিত্তিক ছাত্র রাজনীতি বন্ধের বিপক্ষে সংগঠনগুলো

প্রকাশিত: ০৯:২২, ১৬ অক্টোবর ২০১৯

আপডেট: ০১:১৯, ১৬ অক্টোবর ২০১৯

ইউসুফ রানা: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মভিত্তিক ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে ডাকসুর নেয়া সিদ্ধান্তকে এখতিয়ার বহির্ভুত বলে উল্লে­খ করেছেন সেইসব সংগঠনের নেতারা। এর বিরুদ্ধে কর্মসূচি দেয়া হবে বলেও জানালেন তারা। ডাকসু ভিপি নুরুল হকের অবস্থানও তাদের মতোই। তবে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের অনেকেই মনে করেন, এমন সিদ্ধান্ত ইতিবাচক, যা অগ্রসর বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলায় ভূমিকা রাখবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তালিকাভুক্ত সক্রিয় ছাত্র সংগঠন মোট ১৩টি। এর বাইরে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন এবং ইসলামি ছাত্র মজলিসহ বেশ কয়েকটি ধর্মভিত্তিক ছাত্র সংগঠন ক্যাম্পাসে সক্রিয় রয়েছে। এর মধ্যে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন সবশেষ ডাকসু নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলো।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ধর্মভিত্তিক ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধে ডাকসুর নেয়া সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে এসব ছাত্র সংগঠনের নেতারা। তারা বলছেন, এমন সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার ডাকসু কিংবা প্রশাসনের নেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন এর সভাপতি মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, যেখানে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন আমাদের স্বীকৃতি দিচ্ছে সেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসু কিংবা সিনেট এই অধ্যাদেম জারি করতে পারে না।

এমন সিদ্ধান্তের বিপক্ষে স্বয়ং ডাকসুর ভিপি নুরুল হক। তিনি বলছেন, সংবিধান অনুযায়ী এমন সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার ডাকসুর নেই। তারা মূলত এই বিষয়টি নিয়ে দাবি তুলেছেন যে ধর্ম ভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধকরণ। সেখানে আমার ব্যাক্তিগত মূল্যায়ন বা অধিবাদ ছিল যে যারা বাংলাদেশের আই অনুযায়ী নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন নিয়ে রাজনীতি করছে তাদের রাজনীতি আমরা নিষিদ্ধ করতে পারিনা।

এদিকে, স্পর্শকাতর হওয়ায় ডাকসুর এই সিদ্ধান্তের বিষয়ে অনেক শিক্ষার্থীই মন্তব্য করতে চাইছেন না। তবে অনেকেই একে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন। শিক্ষার্থী জানান, ধর্মকে পুঁজি না করে তারা গণতন্ত্রকে পুঁজি করে সামনে আসুক তারা এটাই প্রত্যাশা করেন। রাষ্ট্র যদি এটা বাস্তবায়ন করে তাহলে সব দিকেই খেয়াল রাখতে হবে বলে মন্তব্য করেন আরেক শিক্ষার্থ।

শিক্ষকরা বলছেন, এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হলে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ আরো ভালো হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী জানান, নির্বাচন কমিশন কতগুলো বিষয় আমাদের জাতীয়পট নির্ধারণ করে দিয়েছে। সেখানে একটা গাইড লাইন আছে। আর কোন ধর্মের নাম দিয়ে কোন দল হওয়া উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন  হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল প্রাধ্যক্ষ নিজামুল হক ভূইয়া।

স্বাধীনতা সংগ্রামে ডাকসু’র অগ্রণী ভূমিকার কথা উলে­খ করে, তারা বললেন, এই   সিদ্ধান্তের মাধ্যমে ডাকসু তার মৌলিক দায়িত্ব পালন করেছে।

এই বিভাগের আরো খবর

চালের বাজারও অস্থির, কেজিতে বেড়েছে ৫ টাকা

ইউসুফ রানা: আবারো চালের দাম বেড়েছে।...

বিস্তারিত
ভয়াল ১২ই নভেম্বর আজ

ডেস্ক প্রতিবেদন: ভয়াল ১২ই নভেম্বর আজ।...

বিস্তারিত
সুন্দরবন বার বার রক্ষা করছে উপকূলবাসীকে

আমিনুল ইসলাম মিঠু: ঘূর্ণিঝড় বুলবুল...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *