নজরদারির কারণে কৌশল পাল্টাচ্ছে স্বর্ণ পাচারকারীরা 

প্রকাশিত: ০৩:১৭, ১১ অক্টোবর ২০১৯

আপডেট: ০৪:১৮, ১১ অক্টোবর ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কড়া নজরদারির কারণে কৌশল পাল্টাচ্ছে পাচারকারীরা। তবে, পাচারকারীদের নতুন কৌশলও গোয়েন্দা নজরদারির কারণে ব্যর্থ হচ্ছে। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে কমেছে স্বর্ন পাচার। লোকবল ঘাটতিসহ নিরাপত্তা চেকিংয়ের আধুনিক যন্ত্রপাতির অভাব দূর করা গেলে স্বর্ণ পাচার বন্ধ করা যাবে বলে জানিয়েছেন, কাস্টম গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর মহাপরিচালক। 

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ২০১২-১৩ সালে একের পর এক স্বর্ণের বড় বড় চালান ধরা পড়ে। বিমানবন্দরে কাস্টমস, এপিবিএন ও কাস্টমস গোয়েন্দাদের নজরদারী ও তৎপরতায় গেলো কয়েক বছরে অনেকটাই কমে এসেছে এ প্রবণতা।  
 
নজরদারী এড়াতে পাচারকারীরাও প্রতিনিয়ত স্বর্ণ বহন ও পাচারের কৌশল পরিবর্তন করছে বলে জানিয়েছে গোয়েন্দারা। 

কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জানান, শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের যাত্রীদের দেশের ভেতরে ও বাইরে যাওয়া আসার ৮টা গেটসহ অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে নজরদারীর দায়িত্বে রয়েছেন মাত্র তিনজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা। ১২ঘন্টার  শিফটের দায়িত্বে থাকেন ১জন। শাহজালাল’সহ দেশের সব বিমানবন্দর ও স্থলবন্দর নজরদারীর জন্য কাস্টমস্ গোয়েন্দার লোকবল সংকট প্রকট। প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতিসহ আনুষঙ্গিক উপকরণেরও ঘাটতি রয়েছে। 

এসব সংকট কাটিয়ে ওঠা গেলে বিমানবন্দরের নজরদারী আরো কঠোর হবে বলে জানান তিনি। 


 

এই বিভাগের আরো খবর

সোমবার ঢাকায় আসছে চীনা চিকিৎসক দল

কাজী বাপ্পা: করোনা ভাইরাস মোকাবেলায়...

বিস্তারিত
এখনই শুরু হচ্ছে না এইচএসসিতে ভর্তি কার্যক্রম

রীতা নাহার: করেনা সংকটের কারণে এবছর...

বিস্তারিত
দেশে করোনা সংক্রমণ দীর্ঘমেয়াদী হওয়ার আশংকা

শাহনাজ ইয়াসমিন: প্রতিরোধ ব্যবস্থা বা...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *