পৃষ্টপোষকতা নেই খো খো খেলোয়াড়দের

প্রকাশিত: ১০:১৮, ০৪ অক্টোবর ২০১৯

আপডেট: ১২:০৬, ০৪ অক্টোবর ২০১৯

কাজী ফরিদ: খেলা শেষ হলেই কোচ ও খেলোয়াড়দের ভুলে যায় খো খো ফেডারেশন। জাতীয় বা আন্তর্জাতিক কোন প্রতিযোগীতার আগেই কেবল কয়েক মাস ভাতা পায় জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা। ফেডারেশন বলছে, পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ না থাকায় খেলোয়াড়দের সাথে স্থায়ী চুক্তিতে যাবার সুযোগ নেই।

খো খো জাতীয় নারী দলের হয়ে খেলেছেন কয়েকটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় খেলেছেন সাতক্ষীরার মেয়ে আরিফা খাতুন। ২০১৬ সালে ভারতে তৃতীয় এশিয়ান খো খো চ্যাম্পিয়শিপে সেরা খেলোয়াড় হন। কিন্তু দেশে খেলার অবস্থা নিয়ে আছে আক্ষেপ।

নারী ও পুরুষ খো খো দলের বর্তমান খেলোয়াড়দের সিংহভাগ শিক্ষার্থী। অনেকেই অতি নিন্ম আয়ের পরিবার থেকে উঠে এসেছেন। খেলার আগ্রহ অনেক, কিন্তু বছরের পর বছর কোচ ও খেলোয়াড়দের খোঁজ নেয় না ফেডারেশন।

ক্যাম্প চলাকালীন কয়েক মাস জাতীয় দলের খেলোয়াড়রা ভাতা পান। তারপর আর প্রাপ্তি নেই, শুধু আছে সীমাবদ্ধতা।

খো খো ফেডারেশনের অর্থের উৎস তিনটি। সরকারের বার্ষিক বরাদ্দ সাড়ে ৭ লাখ টাকা, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ইভেন্ট ভিত্তিক এককালীন অনুদান এবং স্পন্সরদের কাছ থেকে পাওয়া অর্থ।  ফেডারেশন বলছে মোট অর্থের পরিমাণ অতি নগণ্য।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, সংকট নিরসন সরকারের একার বিষয় নয়, ফেডারেশনের সক্রিয় ভূমিকা দরকার।

গোপন সাক্ষাৎকারে একজন খেলোয়াড় প্রশ্ন তুলেছেন সরকারি বরাদ্দের অর্থ ব্যয় নিয়ে।  পাল্টা জবাব দেন  ফেডারেশন সাধারণ সম্পাদক।

তবে সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য অনুযায়ী প্রশাসনিক খাতে ব্যয়ের কোন দৃশ্যমান প্রমাণ মেলেনা ফেডারেশন কার্যালয়ে।

এই বিভাগের আরো খবর

ক্লাবে ক্যাসিনো বসিয়ে লাভবান হাতে গোনা ক’জন

মাবুদ আজমী: ক্যাসিনোর কালিমা লাগার পর...

বিস্তারিত
দিলকুশা ক্লাব দখল করে ক্যাসিনো চালু করেন সাঈদ

মাবুদ আজমী: মতিঝিলের ক্লাব পাড়ায় অবৈধ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *