বাজেট ও পৃষ্ঠপোষক নেই বেসবলে

প্রকাশিত: ১০:৩৭, ০২ অক্টোবর ২০১৯

আপডেট: ১২:৩৫, ০২ অক্টোবর ২০১৯

মাবুদ আজমী: বেসবল ফেডারেশনের বাজেট ও অর্থের তেমন কোন গুরুত্বপূর্ণ উৎস নেই। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ বাৎসরিক ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়। পৃষ্ঠপোষক খুঁজে চলে টুর্নামেন্ট। পৃষ্ঠপোষকতা করায় আগ্রহী নেই তেমন, তাই টুর্নামেন্টও আয়োজন করতে পারে না বেসবল ফেডারেশন। খেলোয়াড়দের কোন আয় নেই। একজন জাপানি কোচ অনিয়মিত প্রশিক্ষণ দেন বিনা বেতনে।  

বেসবল ফেডারেশন আয় বলৈ তেমন কিছু নেই, আয়েরও কোন উৎস নেই। ভাষানী স্টেডিয়ামের একটি কক্ষে ফেডারেশনের কার্যালয়। তাও বেশিরভাগ সময় থাকে তালাবদ্ধ।

এই ফেডারেশনের বাজেট বলতে, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ থেকে বছরে বরাদ্দ দেয়া ৭৫ হাজার টাকা।  টুর্নামেন্ট আয়োজন করতে পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান খোঁজে আয়োজকরা।, সেটাও পাওয়া দুষ্কর। এরপরেও অর্থ বরাদ্দ, দাতা প্রতিষ্ঠানের সহযোগীতায় বিদেশ সফরসহ নানা কারণে টিকি আছে ফেডারেশনটি।

নিয়মিত বেসবল খেললেও কোন আয় নেই খেলোয়াড়দের। তবে সরকারি-বেসরকারি সুযোগ-সুবিধাগুলো পেলে বিশ্বের বুকে বড় কিছু করে দেখানোর স্বপ্ন আছে শুধূ।

কোচ আছেন একজন নেই তারও পারিশ্রমিক। জাপানের বিভিন্ন বন্ধুর সহযোগীতায় বাংলাদেশি খেলোয়াড়দের সপ্তাহে একদিন প্রশিক্ষণ দেন জাপানী কোচ। তার সাথে আছে একজন বাংলাদেশী সহকারী কোচ। সঠিক পরিকল্পনা ও পরিচর্যা পেলে দেশে বেসবলকে এগিয়ে নেয়া সম্ভব বলে বিশ্বাস বিদেশেী কোচের।

কোন পারিশ্রমিক, অনুপ্রেরণা, উৎসাহ না থাকায় পরিবার নিরুৎসাহিত করে খেলোয়াড়দের। তারপরও শুধু দেশের কথা ভেবেএখরেঅড়ারড়া নিজেদের উৎসাহে চালিয়ে যাচ্ছেন বেসবল খেলা।

 

 

এই বিভাগের আরো খবর

ক্লাবে ক্যাসিনো বসিয়ে লাভবান হাতে গোনা ক’জন

মাবুদ আজমী: ক্যাসিনোর কালিমা লাগার পর...

বিস্তারিত
দিলকুশা ক্লাব দখল করে ক্যাসিনো চালু করেন সাঈদ

মাবুদ আজমী: মতিঝিলের ক্লাব পাড়ায় অবৈধ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *