ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

2019-08-19

, ১৭ জিলহজ্জ ১৪৪০

কুয়াকাটায় বাড়ছে পর্যটকদের ভিড়

প্রকাশিত: ১০:৫৫ , ১৩ আগস্ট ২০১৯ আপডেট: ১২:১০ , ১৩ আগস্ট ২০১৯

পটুয়াখালী প্রতিনিধি : ভ্রমণ পিপাসুদের অন্যতম আকর্ষণের জায়গা কুয়াকাটার সমুদ্র সৈকত। কারণ এটিই দেশের একমাত্র সমুদ্র সৈকত যেখান থেকে সুর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দেখা যায়। তাই অবসরে এই সাগর তীরে চলে যান ভ্রমণ প্রিয় মানুষ। এবারের ঈদের ছুটিতেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। এরইমধ্যে কুয়াকাটায় যেতে শুরু করেছেন পর্যটকরা। আর পর্যটকদের বরণে সব প্রস্তুতি শেষ করেছে হোটেল-মোটেলগুলো। পাশাপাশি তাদের পক্ষ দেয়া হয়েছে বাড়তি সুযোগ সুবিধা।

পর্যটন মৌসুম ছাড়াও দুই ঈদের ছুটিতে প্রতি বছর কুয়াকাটায় পর্যটকদের একটা বাড়তি চাপ থাকে। এজন্য কোরবানীর ছুটিতেও এরইমধ্যে আসতে শুরু করেছেন পর্যটকরা। ধীরে ধীরে বাড়ছে পর্যটকদের আনাগোনা। 

মূলত কুয়াকাটা পর্যটকদের কাছে সাগর কন্যা হিসেবে পরিচিত। ১৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট এটিই বাংলাদেশের একমাত্র সমুদ্র সৈকত যেখানে দাঁড়িয়ে সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দুটিই দেখা যায়। এছাড়া পর্যটকদের বাড়তি আকর্ষণ থাকে লাল কাকড়ার চর, গঙ্গামতি, লেম্বুরবন কুয়াকাটা বৌদ্ধ মন্দিরসহ এখানকার দর্শনীয় স্থানগুলোর প্রতি। পাশাপাশি এখানকার রাখাইন বাজারের প্রতি পর্যটকদের আকর্ষণও থাকে বেশ। 

তাই পর্যটকদের বরণ করে নিতে এরই মধ্যে সবধরনের প্রস্তুতি শেষ করেছে এখানকার হোটেল- মোটেলগুলো। অনেই এরই মধ্যে চলেও এসেছেন। প্রতিবারের মত পর্যটকদের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধা রেখেছেন  মালিকরা। 

এদিকে, পর্যটন সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, এবার ঈদের ছুটি বেশ লম্বা হওয়ায় আগামী কয়েকদিন পর্যটকদের সংখ্যা ধীরে ধীরে বাড়বে। প্রতি বছর দুই ঈদে কুয়াকাটায় প্রায় অর্ধলাখ মানুষের আগমন ঘটে। বরাবরের মত এবারও পর্যটকদের নিরাপত্তায় সবধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা প্রশাসন।
 

এই বিভাগের আরো খবর

মাগুরায় এ বছর পাটের বাম্পার ফলন

মাগুরা প্রতিনিধি: মাগুরায় এ বছর পাটের ফলন ভালো হয়েছে। কৃষকরা এখন পাট কাটা ও প্রক্রিয়াজাতকরণে ব্যস্ত সময় পার করছেন। অন্য বছরের তুলনায় এবার...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is