চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা কমিয়েছে ব্যবসায়ীরা

প্রকাশিত: ০৯:২৮, ১১ আগস্ট ২০১৯

আপডেট: ০৯:৩৩, ১১ আগস্ট ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত বছরের তুলনায় এবার ৫ লাখ পশু বেশি কোরবানী হবে বলে ধারনা করছে প্রাণিসম্পদ বিভাগ। কিন্তু ট্যানারি মালিক ও এ খাতের ব্যবসায়ীরা চামড়া সংগ্রহের লক্ষমাত্রা গতবারের চেয়ে কমিয়ে দিয়েছে। ফলে এবছর চামড়া পাচার বা নস্ট হওয়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। তাই পাচার রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, গত কোরবানীর ঈদে দেশে প্রায় ১ কোটি ৫ লাখ পশু জবাই করা হয়েছিলো। এ বছর তা আরো ৫ লাখ বাড়বে বলে ধারনা করছে প্রাণি সম্পদ অধিদফতর। 

বছরের পুরো চাহিদার সিংহভাগ চামড়া সংগ্রহ করা হয় কোরবানীর সময়। এবছর পশু কোরবানী বাড়ার সম্ভাবনা থাকলে চামড়া সংগ্রহের লক্ষমাত্রা গতবারের তুলনায় কম নির্ধারণ করেছেন এ খাতের ব্যবসায়ীরা। ২৫ লাখ কমিয়ে এক কোটি চামড়া সংগ্রহ করবে কাঁচা চামড়ার ব্যবসায়ীরা। আর ট্যানারি মালিকদের লক্ষ্য মাত্রা আর ৮০ লাখ চামড়া। 

ব্যাবসায়ীরা বলছেন, হাজারীবাগ থেকে হেমায়েতপুরে ট্যানারী স্থানান্তরের পর এখনও ঘুরে দাঁড়াতে পারেননি তারা। নতুন ট্যানারীতে এখনও উপযুক্ত পরিবেশ তৈরী না হওয়ায় বিদেশী ক্রেতারা কম আসছেন। সাভার চামড়া নগরীতে অনেকে প্লটের মালিকানা বুঝে না পাওয়ায় ব্যাংক ঋণ পেতে সমস্যা হচ্ছে। শিল্পে মন্দার কারণে, গত বছরের ৪০ শতাংশ চামড়া এখনও বিক্রি করতে পারেননি বলেও দাবী করেন ট্যানারী মালিকরা।

তবে, সাভারে ট্যানারী পুরোপুুরি প্রস্তুত হলে এবং ইউরোপে এলডাব্লিউজি সার্টিফিকেট পেলে দেশের চামড়ার বাজার দ্রুতই ঘুরে দাঁড়াতে পারবে বলে মনে করেন তারা।
 

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *