রাঙামাটিতে থামছেই না পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস

প্রকাশিত: ১১:৫৮, ১৫ জুন ২০১৯

আপডেট: ০২:০৩, ১৫ জুন ২০১৯

রাঙামাটি প্রতিনিধি: প্রশাসনের উদ্যোগ সত্ত্বেও রাঙামাটিতে থেমে নেই পাহাড়ে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাস। গত দুই বছরে রাঙ্গামাটিতে পাহাড় ধসে ব্যাপক প্রাণহানির পরও আবারো একই জায়গায় গড়ে তোলা হয়েছে ঘরবাড়ি। শহরের ভেদভেদী, যুব উন্নয়ন এলাকা, মনতলা আদাম, সাপছড়ি, পোস্ট অফিস এলাকা, জয়কালি মন্দির, মুসলিম পাড়া, নতুন পাড়া, শিমুলতলী, মোনঘর, সনাতন পাড়া এলাকায় গত বছর সবচেয়ে বেশি পাহাড় ধসের ঘটনা ঘটে। এসব এলাকায় দুই বছরে পাহাড় ধসে নিহতরে সংখ্যা ১৩১।

কিন্তু এরপরও ভিটেমাটি ছাড়তে নারাজ ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারীরা। বর্তমানে জেলার ৩১টি পয়েন্টকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্থানীয় প্রশাসন। যেখানে বাস করছে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ। ফলে এবারো বর্ষা মৌসুমে প্রাণহানীর শংকা রয়েছে। কিন্তু এরপরও থেমে থাকেনি বসতি স্থাপন।

বর্তমানে জেলায় ৩ হাজার ৩৭৮টি পরিবারের প্রায় ১৫ হাজার লোক পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে বসবাস করছে। যদিও এসব বসবাসকারী মৃত্যুর ঝুঁকি জেনেও ভিটেমাটি ছাড়তে রাজি নয়। বরং পাহাড়কে ঝুঁকিমুক্ত করে বসবাসের উপযোগী করার দাবি তাদের।

ফলে চলতি বর্ষা মৌসুমে আবারো পাহাড়ধসে প্রাণহানীর শংকা রয়েছে। তবে পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে আনার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানালেন পার্বত্য রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশীদ।

রাঙামাটির নানিয়ারচরে ২০১৭ সালের ১৩ জুন পাহাড় ধসে পাঁচ সেনা সদস্যসহ ১২০ জন নিহত হয়। পরের বছর ১১ জুন একই উপজেলায় পাহাড় ধসে মৃত্যু হয় ১১ জনের।

এই বিভাগের আরো খবর

সারাদেশে নৌ ধর্মঘট

নিজস্ব প্রতিবেদক : গেজেট অনুযায়ী বেতন...

বিস্তারিত
উত্তরাঞ্চলে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের...

বিস্তারিত
পণ্যবাহী নৌযান শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার

নিজস্ব প্রতিবেদক : চাকরি স্থায়ীকরণ,...

বিস্তারিত
নৌযান শ্রমিকদের কর্মবিরতি, লঞ্চ চলাচল বন্ধ

অনলাইন ডেস্ক: সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *