পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু: বড় সংকট, সমাধানে নজর নগণ্য

প্রকাশিত: ০৮:৪৬, ০৫ মে ২০১৯

আপডেট: ০২:৩৮, ০৫ মে ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: সংকটটি বেশ বড়, কিন্তু ব্যাপক আলোচনা বা তৎপরতা নেই। এমন একটি বিষয় হচ্ছে দেশের শিশুদের পানিতে ডুবে মৃত্যু। কী শহর কী গ্রাম, সর্বত্রই এই সমস্যার শিকার হচ্ছে অসংখ্য পরিবার। দেশে গড়ে প্রতিদিন ৪০টি শিশু মারা যায় শুধুই পানিতে ডুবে। কিন্তু তা নিয়ে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা, তৎপরতা ও সচেতনতা- তেমন দৃশ্যমান নয়। 
দেশে শিশু মৃত্যুর যতো কারণ তার মধ্যে পানিতে ডুবে মৃত্যু বিশাল এক সমস্যা।  ২০১৬ এর রিপোর্ট অনুযায়ী দেশে প্রতিবছর প্রায় ১৯ হাজার ৫’শ মানুষ মারা যায় পানিতে ডুবে। যার মধ্যে সাড়ে ১৪ হাজার শিশু, অর্থাৎ দৈনিক গড়ে ৪০টি শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। যাদের ৭১ শতাংশ ১ থেকে ৫ বছরের আর নবজাতক ৫৩ শতাংশ।
সংকটটি বড়, কিন্তু দৃশ্যের আড়ালে সবসময়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সংক্রামক রোগে শিশু মৃত্যু কমাতে সমস্ত নজর ছিল, তাই পানিতে ডুবে মৃত্যুর বিষয়টি অবহেলায় পড়ে থাকে।  
বিশ্ব-স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য  মতে, পানিতে ডুবে শিশু-মৃত্যুর সংকট বেশি দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে। 
আশির দশকে সংকটটি নিয়ে বিশ্বে আলোচনা শুরু হয়। আর ২০০৫ সালে বাংলাদেশ হেলথ এন্ড ইনজুরি সার্ভের রিপোর্টে দেখা যায় ১৮ বছরের নিচে প্রায় ১৭ হাজার শিশু পানিতে ডুবে মারা যায়। এরপর দেশেও কেউ কেউ ভাবতে শুরু করেন ।
পানিতে ডুবে মৃত্যু শহরের চেয়ে গ্রামে বেশি। যার ৭৩ শতাংশই ঘটে বাড়ির কাছের পুকুরে। এছাড়া, পানির ট্যাংক, চৌবাচ্চা, এমনকি ঘরে রাখা বালতির পানিতেও এ ধরণের দূর্ঘটনা ঘটে।

এই বিভাগের আরো খবর

ক্লাবে ক্যাসিনো বসিয়ে লাভবান হাতে গোনা ক’জন

মাবুদ আজমী: ক্যাসিনোর কালিমা লাগার পর...

বিস্তারিত
দিলকুশা ক্লাব দখল করে ক্যাসিনো চালু করেন সাঈদ

মাবুদ আজমী: মতিঝিলের ক্লাব পাড়ায় অবৈধ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *